টেকনোলজিমোবাইল ফোনলাইফ স্টাইল

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়

শো-রুম থেকে কিনে আনা সদ্য স্মার্টফোনের খুব কদর থাকে আমাদের কাছে। আর নতুন ফোনের ব্যাটারিও থাকে সুপার ফাস্ট। কিন্তু স্মার্টফোনটি যখন পুরাতন হতে শুরু করে তখন তার কদর কমে। সেটি শুধুমাত্র আমাদের প্রয়োজনের অনুসঙ্গ হয়ে দাঁড়ায়। আবার ব্যাটারির বয়স বাড়ার সাথে সাথে ব্যাটারিও তার কার্যক্ষমতা হারায়। যদিও কোনো ব্যাটারি চিরকাল ব্যবহারের জন্য তৈরি হয় না। তবুও মোবাইলের কিছু ভুল ব্যবহারের কারণে ব্যাটারি দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। আবার অধিকাংশ সময় অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের কারণে ফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায়। সেজন্য মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়গুলো জানা আবশ্যক। কিভাবে মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার যায় তা জানা থাকলে আপনার ফোনের ব্যাটারি তুলনামূলক কম ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  

সূচিপত্রঃ

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়

স্মার্টফোন স্লো হবার পেছনে ব্যাটারির কর্মক্ষমতা অনেকটা দায়ী। কিন্তু নিজেদের কিছু ভুলের কারণেও মোবাইলের ব্যাটারি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক যেভাবে মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখা যায়ঃ

আংশিক চার্জিং

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: আংশিক চার্জিং

আমরা হয়তো মোবাইল ফোন স্ক্রল করতে করতে বা গেম খেলতে খেলতে ফোনের চার্জের দিকে নজর দেই না; হোক তা ০%। আবার অনেকেই মনে করেন মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার জন্য সর্বোত্তম উপায় হলো ফুল চার্জ অর্থাৎ ১০০% করা। কিন্তু উভয়ই আপনার ফোনের ব্যাটারিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে।

আপনি নিজের অজান্তেই আপনার ব্যাটারির উপর জোর দিচ্ছেন। ফলশ্রুতিতে ব্যাটারি তার আয়ু হারাচ্ছে। 

লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারিগুলি সবচেয়ে বেশি চাপের মধ্যে পড়ে যখন সেগুলি সম্পূর্ণরূপে চার্জ করা হয় বা সম্পূর্ণরূপে নিষ্কাশন করা হয়। সেজন্য ব্যাটারি ভালো রাখার সর্বোত্তম পদ্ধতি হলো আংশিক চার্জিং।

আপনার ফোন চার্জ করার এবং এর আয়ু বাড়ানোর অন্যতম উপায় হলো এটিকে আংশিক এবং ঘন ঘন চার্জ করা। তাই মোবাইলের চার্জ ৩০% এর চেয়ে কম হলে চার্জ দিন এবং ৮০% পর্যন্ত চার্জ দেওয়া ভালো। কিন্তু প্রয়োজনে ২০% এর কম চার্জ থাকার আগে এবং সর্বোচ্চ ৯০% পর্যন্ত চার্জ দিন। এই চার্জিং সিস্টেম আপনার স্মার্টফোনের ব্যাটারি লাইফ উন্নত করতে সহায়তা করে।

১০০% চার্জ নয়

অনেকেই সারারাত ফোন চার্জে রেখে ১০০% চার্জ করেন। হাই ভোল্টেজ এর ফলে আপনার ব্যাটারিতে চাপ সৃষ্টি হয়। এতে মোবাইলের ব্যাটারির আয়ুষ্কাল কমে যাবে। এজন্য কখনোই ফোনে ১০০% চার্জ দেওয়া উচিত নয়।

প্রয়োজন ছাড়া ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ অফ রাখুন

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: প্রয়োজন ছাড়া ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ অফ রাখুন

আপনার মোবাইলের ব্যাটারিকে ভালো রাখতে হলে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার মোবাইলের চার্জ যত বেশি থাকবে, মেয়াদও তত বেশি বাড়বে। যেহেতু ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ ব্যাকগ্রাউন্ডে অবিরামভাবে চলছে, এটি কিন্তু আপনার অজান্তেই গোপনে মোবাইলের ব্যাটারি ব্যবহার করছে। সেজন্য বাসার বাহিরে থাকলে বা প্রয়োজন ছাড়া ফোনের ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ অফ রাখুন। এতে আপনার মোবাইলের ব্যাটারি সাশ্রয় হবে।

কিন্তু আপনার বাসার ওয়াইফাই সিগন্যাল দুর্বল হলে ব্যাটারির চার্জ নষ্ট হবে। কারণ দুর্বল ওয়াইফাই অবিরাম সিগন্যাল সার্চ করতে থাকে। এক্ষেত্রে আপনি সেলফোন ডেটা ইউজ করতে পারেন। প্রয়োজন মতো মোবাইল ডেটা অফ বা অন রাখুন। এতে ব্যাটারি সেভিংস হবে।

ব্যবহারের সময় অ্যাপ এক্সেস দিন

আজকাল বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ রয়েছে যেগুলো বাস্তব জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এসব অ্যাপের মধ্যে রয়েছে লোকেশন সার্ভিস অ্যাপ, জিপিএস, টাচস্ক্রিন ভাইব্রেশন ইত্যাদি। আপনার ফোনের ব্যাটারি লাইফ বাঁচানোর সবচেয়ে কার্যকর উপায়গুলির মধ্যে একটি হল এসব অ্যাপ এক্সেস বন্ধ করা। শুধুমাত্র ব্যবহারের সময়ই এসব অ্যাপ এক্সেস দিন। এতে আপনার স্মার্টফোনের চার্জ কম খরচ হবে।

ব্রাইটনেস কমিয়ে রাখুন

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: ব্রাইটনেস কমিয়ে রাখুন

আপনার স্মার্টফোনের স্ক্রিন কিন্তু ফোনের ব্যাটারি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করে। তাই আপনার স্ক্রিনের উজ্জ্বলতা কমিয়ে দিলে ব্যাটারির শক্তি সঞ্চয় হবে। প্রয়োজন ছাড়া ব্রাইটনেস কমিয়ে রাখুন। এক্ষেত্রে আপনি অটো ব্রাইটনেস অপশনটি চালু করতে পারেন। যা আপনার ফোনের ব্যাটারির আয়ু বাঁচাবে।

সবসময় ব্রাইটনেট বেশি রাখার কোনো প্রয়োজন নেই। রোদে গেলে অটো ব্রাইটনেস অপশনটি চালু রাখলে বা ব্রাইটনেস বাড়িলে নিলেই চলে। কিন্তু ইনডোরে কম ব্রাইটনেসে আপনি ফোনের যাবতীয় কাজ করতে পারবেন। সেজন্য ফোনের ব্রাইটনেস কমিয়ে ব্যাটারিকে ভালো রাখুন।

পাওয়ার সেভিং মোড ব্যবহার

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: পাওয়ার সেভিং মোড ব্যবহার

পাওয়ার সেভিং মোড আপনার ব্যাটারি সাশ্রয় করে। যখন আপনার ব্যাটারি স্লো বা ব্যাটারি ভালো রাখতে আপনার ফোনের পাওয়ার সেভিং মোড চালু করুন। অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস উভয়েরই বিশেষ পাওয়ার সেভিং মোড রয়েছে। এটি বিশেষ সহায়ক। কারণ এটি ব্যাটারি লাইফ হ্রাস করে এমন ফাংশনগুলিকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে কমিয়ে দেয়। যেমন- CPU এর কর্মক্ষমতা সীমিত করে, স্ক্রীনের ব্রাইটনেস কমায়। 

আপনার ফোনের ব্যাটারিতে চার্জ কম থাকলে বা ব্যাটারি পুরাতন হয়ে গেলে পাওয়ার সেভিং মোড বেশি কাজে আসে। তখন এই পাওয়ার সেভিং মোড স্বয়ংক্রিয়ভাবে ক্লিক করে যখনই চান তখন সহজেই ম্যানুয়ালি একটিভ করতে পারেন৷ এর ফলে আপনি হয়তো কম পারফরমেন্স পাবেন কিন্তু ভালো ব্যাটারি লাইফ পাবেন। 

যদিও এই মোডটি সবসময় চালু রাখা সম্ভব নয়। তাই যখন ফোনটি কম ইউজ করবেন তখন পাওয়ার সেভিং মোড অন করুন। যা আপনার ফোনের ব্যাটারির উপর চাপ কমাতে সাহায্য করবে।

ডার্ক মোড চালু করুন

আপনার ফোন যদি AMOLED ডিসপ্লের হয়, তাহলে ডার্ক মোড অন করতে পারেন। কারণ এতে ফোনের ব্যাটারির আয়ু উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পায়। ফোনে ডার্ক মোড একটিভ থাকলে হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার, ইউটিউব, জিমেইল এবং অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপগুলিতে ডার্ক মোড একটিভ হয়ে যায়। এছাড়া স্ক্রিনের ব্লু লাইট চোখের জন্য ক্ষতিকর। এজন্য ডার্ক মোড ব্যবহার উত্তম। PhoneBuff এর একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে,  ডার্ক মোড অন করলে iPhone-এর ব্যাটারির আয়ু 30% বাড়ানো যেতে পারে। Google তার নিজস্ব গবেষণায় দেখিয়েছে যে কীভাবে Google Pixel নাইট মোডে 63% কম শক্তি নিয়ে আসে। Apple Insider দেখেছে, ডার্ক মোডে প্রায় 60% ব্যাটারি সাশ্রয় হয়।

অতিরিক্ত তাপমাত্রা এড়িয়ে চলুন

আপনার ফোন খুব গরম বা ঠান্ডা হলে ব্যাটারির  আয়ু কমে যেতে পারে। লি-আয়ন ব্যাটারি প্রচণ্ড গরম বা ঠান্ডায় ভালো রেসপন্স করে না। আপনি যদি একটি ঠান্ডা এলাকায় অবস্থান করেন, তবে মোটা ফোন কেস ব্যবহার করা ভালো যা এটিকে উষ্ণ রাখতে পারে। আবার গরম আবহাওয়ার জন্য আপনার ফোনকে সূর্যালোকের সংস্পর্শে রাখবেন না। লি-অন ব্যাটারির জন্য তাপ সবচেয়ে খারাপ শত্রু। এছাড়া ঠান্ডা সাময়িকভাবে ব্যাটারির স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে।

আবদ্ধ স্থানে আপনার মোবাইল ডিভাইসটি রাখা বা সংরক্ষণ না করাই সর্বোত্তম। কারণ এটি ফোনের তাপমাত্রা বাড়ায়। বিশেষ করে একটি গরম গাড়ির ভিতরে ফোনে হিট বেশি হয়। আবার অনেকে রাতে বালিশের তলায় ফোন নিয়ে ঘুমান। এতেও ফোন গরম হয়।

ফোনের ব্যাটারি পুরাতন হলে, বিভিন্ন কারণে ফোন দীর্ঘসময় চার্জে রাখলে, চার্জে থাকা অবস্থায় ফোন গরম হতে পারে। সেক্ষেত্রে দ্রুত ফোন আনপ্লাগ করা জরুরি। ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে গেলে ফোনে ব্যবহৃত ব্যাক কাভারটি খুলে রাখুন।

ফোন চার্জিং এর সময় ব্যবহার নয়

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: ফোন চার্জিং এর সময় ব্যবহার নয়

ফোন চার্জে দিয়ে অনেকেই ফোন ব্যবহার করেন। যেটা খুবই খারাপ একটি অভ্যাস। এই অভ্যাসের পরিণতি হতে পারে খুবই ভয়াবহ। অনেক সময় চার্জে থাকা অবস্থায় ফোন ব্যবহার করলে ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়। এর থেকে ফোন ব্লাস্টের মতো ভয়ানক দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে৷ যার সংখ্যা নেহাত কম নয়। তাই ফোন চার্জে দিয়ে ব্যবহার করা একদমই উচিত নয়।

অনেকেই ফোন চার্জে দিয়ে গেম খেলে থাকেন, সোশ্যাল মিডিয়া স্ক্রল করেন বা প্রয়োজনীয় কাজ করেন। এতে আপনার ফোনের ব্যাটারিটিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। হেভি গেম দীর্ঘসময় খেলার কারণে ফোন ওভার হিটিং হয়। যা বিপদজনক তো বটেই, ব্যাটারির স্বাস্থ্যের উপরও চরম খারাপ প্রভাব ফেলবে। তাই অতি প্রয়োজনে ফোনের চার্জ আনপ্লাগ করে ব্যবহার করুন। 

অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করুন

ফোনের অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করলে ফোনের আয়ু বাড়ে। কিন্তু আপনি যদি অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার না করেন তবে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার সক্ষমতা কমে যায়৷ 

কিন্তু অনেকেই ফোনের নিজস্ব চার্জার নষ্ট হলে বা হারিয়ে গেলে সস্তা বা নন-ব্র্যান্ডের চার্জার কিনে থাকেন। এতে ফোন চার্জ হতে সময় লাগে, ফোন গরম হয়, ব্যাটারির মেয়াদ কমে, ফোন স্লো হয়ে যায়, ব্যাটারি ফুলে যাবার মতো সমস্যা হয়। তাই অরিজিনাল চার্জার ব্যবহার করুন।

ফোনের ব্যাটারি হেলথ ট্র্যাক

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়: ফোনের ব্যাটারি হেলথ ট্র্যাক

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার জন্য ফোনের সঠিক ব্যবহার জরুরি। সেজন্য আপনার ব্যাটারির কর্মক্ষমতা ও ব্যাটারির স্বাস্থ্য সম্পর্কে জেনে রাখা ভালো। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস ডিভাইসে ব্যাটারি হেলথ ট্র্যাক ইউজ করতে পারেন। যা আপনার ব্যাটারির কর্মক্ষমতা ও ব্যাটারির স্বাস্থ্য সম্পর্কে আপনাকে অবগত করতে সাহায্য করবে। তাছাড়া আপনার ফোনে ব্যবহৃত অ্যাপগুলো কি পরিমাণ ব্যাটারি ব্যবহার করছে সেটিও জানতে পারবেন। এতে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ ডিলিট করতে পারবেন। 

ফোন অটো আপডেট অফ রাখুন

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখতে ফোনের খুঁটিনাটি বিষয়গুলোর দিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। যেমন- আমরা প্রায়ই ভুলে করে বা বিনা প্রয়োজনে আমাদের স্মার্টফোনটিতে অটো আপডেট অপশনটি চালু করে রাখি। ফলে অ্যাপগুলো আটো আপডেট হতে শুরু করে। যা ফোনের ব্যাটারির আয়ু কমিয়ে দেয়। 

অটো আপডেট অন রাখলে তা ব্যাকগ্রাউন্ডে অনবরত আপডেট অ্যাপ সার্চ করতে থাকে। যা আপনার ফোনের ব্যাটারির মেয়াদ কমিয়ে দেয়।

অটো-লক টাইম কমিয়ে রাখুন

আমরা সকলেই কম-বেশি আটো লক বা স্ক্রিন টাইম আউট অপশনটি ব্যবহার করে থাকি। এটি চালু না থাকলে ফোন অনবরত চালু থাকে। এই অপশনটি অন থাকলে কিন্তু ব্যাটারি সেভিংস হয়। সাধারণত ৩০ সেকেন্ড বা ১/২ মিনিট পর মোবাইল স্ক্রিন নিজ থেকেই অফ হবার জন্য অটো-লক টাইম সেট করা হয়। তবে এটি কখনই দীর্ঘসময়ের জন্য করা উচিত না। তাতে আরও ফোনের চার্জ কমে যাবে।

ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপগুলো অফ রাখুন

মোবাইলে আমরা প্রয়োজনে বা বিনা প্রয়োজনে বা সাময়িক প্রয়োজনে অনেক অ্যাপ ব্যবহার করি। কিন্তু এগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে অন থাকে। কিন্তু অনেক অ্যাপেরই ব্যাকগ্রাউন্ড এক্টিভিটি প্রয়োজন নেই৷ যা শুধু ফোনের চার্জ নষ্ট করে। তাই যেসব অ্যাপের ব্যাকগ্রাউন্ড এক্টিভিটির প্রয়োজন হয় না সেগুলো অফ রাখুন।

ব্যাটারি সেভিংস অ্যাপস চালু করুন

আমরা অনেক সময় বিভিন্ন ফিচার বা অ্যাপ ব্যবহার করি যা দ্রুত চার্জ ফুরিয়ে দেয়। আবার অনেক হেভি অ্যাপ ব্যবহারে ফোন স্লো হয়ে যায়। তার উপর যদি আপনার ফোন পুরাতন হয় তবে তো বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে৷ তাই ফোনে লাইভ ওয়ালপেপার ব্যবহার বন্ধ রাখুন। এটি ব্যাটারিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে ফোনকে স্লো করে দেয়। তাছাড়া পুরাতন ফোন হলে হেভি অ্যাপ, যেমন- ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার প্রভৃতির পরিবর্তে লাইট অ্যাপ ইউজ করুন। এতে ব্যাটারি সাশ্রয় হবে।

উপসংহার

মোবাইল যেহেতু একটি অতি প্রয়োজনীয় ভিভাইস, তাই ডিভাইসটির প্রতি একটু হলেও যত্নশীল হওয়া উচিত। আর মোবাইলের যত্নের প্রসঙ্গের সাথে এর ব্যাটারির যত্নের বিষয়টিও চলে আসে৷ তাই এই উপায় গুলো মেনে চললে আপনার ব্যাটারি আরও সাশ্রয়ী ও দীর্ঘমেয়াদী হবে। 

সচারাচর জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১. মোবাইলে চার্জ থাকে না কেন?

উত্তর: আপনি যদি সবসময় আপনার ফোনটি ব্যবহার করেন তাহলে আপনার ফোনের চার্জ খুব দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে। সবসময় ডেটা চালু, ভিডিও দেখা, সোশ্যাল মিডিয়া স্ক্রল, গেমিং এর কারণে দ্রুত চার্জ চলে যায়।

২. ব্যাটারির চার্জ বেশি থাকার উপায় কি?

উত্তর: ব্যাটারির চার্জ বেশি থাকার উপায় হলো সঠিক ভাবে ফোন চার্জ দেওয়া। এছাড়া ফোন চার্জে দিয়ে হেভি ইউজ করা থেকে বিরত থাকুন।

৩. নতুন ব্যাটারি চার্জ দেবার নিয়ম কি?

উত্তর: নতুন ব্যাটারি চার্জে দেবার সময় ফোন বন্ধ করে ১০০% চার্জ দিন। নতুন ব্যাটারি ১০০% চার্জ হতে সময় লাগে ৬-৭ ঘন্টা।

৪. মোবাইলের ব্যাটারি ফুলে গেলে কি করতে হবে?

উত্তর: মোবাইলের ব্যাটারি ফুলে গেলে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই ব্যাটারি ফুলে গেলে সারারাত চার্জে দেওয়া, নেট ব্রাউজিং, হেভি ইউজ করা থেকে বিরত থাকুন। 

৫. মোবাইল বন্ধ করে কি চার্জ দেওয়া যায়?

উত্তর: হ্যাঁ, মোবাইল বন্ধ করে চার্জ দেওয়া যায়। এতে দ্রুত চার্জ হয় এবং ব্যাটারির আয়ু বাড়ে।

রিলেটেড আর্টিকেল গুলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button