উন্নয়নখবর

আসুন নিজেরাই করি মুক্তা পানির মার্কেটিং, হতে বলি ডিলার

আসুন জেনে নেই “মুক্তা” কি?

মুক্তা হচ্ছে বাংলাদেশি একটি পানির ব্র্যান্ডের নাম। পুরো নাম “মুক্তা ড্রিঙ্কিং ওয়াটার (Mukta Drinking Water)“। এখন আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে বাংলাদেশে তো অনেক পানির ব্র্যান্ড আছে কেন আমরা মুক্তা পানির মার্কেটিং করবো। হ্যাঁ, আমরা করবো কারন এই পানির উৎপাদন প্রক্রিয়ার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পুরোটাই করে এর সাথে যুক্ত প্রায় তিনশ’র অধিক প্রতিবন্ধী ভাই বোনেরা। তাদের দ্বারাই পরিচালিত হয় মুক্তা পানির কারখানা। আর পানির বিপনন থেকে যে লাভ হয়, তা সম্পূর্ণটাই ব্যয় হয় আমাদের দেশের প্রতিবন্ধী মানুষ দের উন্নয়নে। সুতরাং এই পানি যত বেশি বিক্রি হবে ততোটাই কল্যাণ হবে আমাদের দেশের সকল প্রতিবন্ধী মানুষদের।

মুক্তা পানির কারখানার ঠিকানাঃ গাজীপুরের টঙ্গীতে অবস্থিত, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে (শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট) সুইডিশ কারিগরি সহায়তায় এর কারখানাটি পরিচালিত হয়।

এই পানির পুরোটাই মাটির নিচ থেকে তোলা হয় এবং পরে তা সম্পূর্ণ বিশুদ্ধ করে বোতলজাত করা হয়। সরকারি অফিসগুলোতে এবং সরকারি হাই লেভেলের মিটিং বা প্রোগ্রাম এ পানি ব্যবহার করা হয়। আমাদের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এই পানি খায় সুতরাং এই পানির বিশুদ্ধতা নিয়ে প্রশ্ন থাকার কথা না।

এই পানির দাম বাজারে থাকা অন্যান্য ব্র্যান্ডের সমানই। শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন ও প্রচার না থাকায় এই ব্র্যান্ডের সম্পর্কে মানুষ জানতে পারছে না এবং ব্র্যান্ডটির প্রসার ঘটছেনা। এই পানিটি পাওয়া যাচ্ছে নয়টি ভিন্ন ভিন্ন আকৃতির বোতল ও জারে, যার মদ্ধে রয়েছে ৫০ মিলিলিটার, ৩০০, ৫০০, ৬০০, ১০০০, ১৫০০ ও ২০০০ মিলিলিটারের বোতল এবং ৫ ও ২০ লিটারের জার।

দেশের প্রতিবন্ধীদের মেধাকে কাজে লাগানোর এটি একটি দারুন পদক্ষেপ যা আমাদের সরকার নিয়েছে। এতে করে একদিকে আমাদের প্রতিবন্ধী ভাই বোনরা হয়ে উঠছে আত্মনির্ভরশীল, পারিপার্শ্বিকতা ও প্রতিবন্ধকতাকে হার মানিয়ে হয়ে উঠতে পরিবারের আয়ের প্রধান জোগানদাতা, পাচ্ছে তাদের জীবনটাও অর্থবহ করার সুজোগ। আর অন্য দিকে গড়ে উঠছে আমাদের দেশিও একটি ব্র্যান্ড। এতে আমরা বিদেশী পানির ব্যবহার কমিয়ে সল্প পরিমানে হলেও কমাতে পারব আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয়। যার সুবিধা ভোগ করবে আমাদের সারা দেশের মানুষ।

কিভাবে আমরা মুক্তা পানির মার্কেটিং করবো?

মুক্তার মার্কেটিং

এখানে আমি কিছু আইডিয়া শেয়ার করছি। আপনাদের মাথায় আরও কোন আইডিয়া থাকলে দয়া করে আমাদের জানান আমরা সেইগুলো যোগ করে দিব।

  • আমরা আমাদের ফেসবুক এর  প্রোফাইল বা কভার এ একদিনের জন্য হলেও দিতে পারি মুক্তা পানির লোগো।
  • আমাদের আড্ডায় একবার হলেও তুলতে পাড়ি এই মুক্তা পানির নাম। জানি এটা করার পর অনেকেই হয়ত ব্যঙ্গ করবে, এই পানির মান নিয়ে নানা রকম কথা বলবে কিন্তু আমরা তাদের কাছে এর গুরুত্ত টা তুলে ধরব।
  • আমরা আমাদের পাড়া মহল্লার সকল দোকানদারকে এই পানির বেপারে জানাতে পাড়ি এবং আমাদের উদ্দেশটা জানিয়ে তাদের উদ্বুদ্ধ করতে পাড়ি। হয়তবা একদিনে কাজ হবে না তাই আমরা বার বার চেষ্টা করতে হবে।
  • কোন দোকানে বা হোটেল রেস্টুরেন্টে যখনি পানি কিনব তখন তাদের কাছে মুক্তা পানি আছে কিনা জিজ্ঞাসা করতে পাড়ি। এভাবে আমরা সবার মাঝে মুক্তা পানির পরিচিতি বাড়াতে পারব।
  • সারা দেশে চলছে মুক্তা পানির ডিলার নিয়োগ। আমরা আমাদের পরিচিত পানির ডিলার থাকলে তাদের উদ্বুদ্ধ করতে পাড়ি অন্য পানির সাথে মুক্তা পানিরও ডিলারশিপ নেয়ার জন্য।

এভাবে যদি আমরা ডিমান্ড তৈরি করতে পাড়ি তাহলে সাপ্লাই আপনাআপনি চলে আসবে। তখন প্রত্যেকটা দোকানদার, হোটেল রেস্টুরেন্টগুলো এই পানি তুলতে বাধ্য হবে।

এখন সময় এসেছে আমাদের কিছু করার। সবার সম্মলিত প্রচেষ্টায় সবার সাথে পরিচয় করানোর আমাদের দেশি ব্র্যান্ড মুক্তা ড্রিঙ্কিং ওয়াটার (Mukta Drinking Water)

পানি তো আমরা হরহামেশাই কিনি চলুন এখন থেকে আমরা একবার মুক্তা পানিটিও চেয়ে দেখি। আর যদি পেয়ে যাই তাহলে আমাদের প্রতিবন্ধী ভাই বোনদের তৈরি দেশীয় ব্র্যান্ডের মুক্তা পানিটাই না হয় কিনি।

মুক্তা পানির ডিলার নিয়োগ বা যেকোনো বিষয়ে বিস্তারিত জানতে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ‘শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট’র এর www.spst.gov.bd এই ওয়েবসাইটটি ভিসিট করুন অথবা ফোন করুন ৯৮১৩২৭৯ এই নাম্বারে।

Tags

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button