টেকনোলজি

বাংলাদেশে লাইভ টিভি দেখার জনপ্রিয় ওটিটি প্ল্যাটফর্ম

বাংলাদেশে লাইভ টিভির প্রচলন খুব বেশি দিনের নয়। ডিশ ক্যাবলের যুগ থেকে বছর দুই-এক হলো এদেশের মানুষ লাইভ টিভির প্রতি ঝুঁকেছে। যদিও বাংলার অধিকাংশ ঘরে এখনো ডিশ ক্যাবলের কোন বিকল্প নেই। তবে যত দিন যাচ্ছে মানুষ টিভির বদলে মোবাইল ফোন, প্যাড কিংবা কম্পিউটারেই বেশি অভ্যস্থ হচ্ছে। তার পাশাপাশি মানুষের ঘরে ঘরে স্থান হচ্ছে স্মার্ট টিভির। আর প্রযুক্তির এমন ছোঁয়াতেই বাংলাদেশে ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। উপরন্তু করোনা মহামারী যেন তাদের হালে আরো পানি এনে দিয়েছে। সাধারণ ডিশের বিকল্প হতে পারে এসব ওটিটি প্ল্যাটফর্ম। যাতে রয়েছে লাইভ টিভি সহ মুভি, গান, সিরিজ ও নানা কিছু। চলুন জানা যাক কিছুটা বিস্তারিত।  

সূচিপত্রঃ

লাইভ টিভি ও ওটিটি প্ল্যাটফর্ম কী?

লাইভ টিভির ধারনাকে সাধারণত দু’টি ভাগে ভাগ করা যায়। কোন ঘটনা ঘটতে থাকাকালীন তা সরাসরি যখন টিভিতে সম্প্রচার করা হয় তখনই তা হয় ‘লাইভ’ শো। এর বাইরে আমরা টিভিতে সাধারণত যা দেখি তার বেশিরভাগই আগে থেকে রেকর্ড করা। কিন্তু ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে লাইভ টিভির ধারনাটা একটু অন্যরকম। বর্তমান প্রযুক্তির বদৌলতে আমরা চাইলে ডিশ ক্যাবল ছাড়াই অধিকাংশ চ্যানেল সরাসরি দেখতে পারি। অর্থাৎ সেসময়ে টিভিতে যা দেখাচ্ছে আমরা অনলাইনেই তা দেখছি। অনলাইনের ক্ষেত্রে মূলত এটাকেই বলে লাইভ টিভি। 

অপরদিকে ওটিটি (OTT) শব্দের মানে ‘ওভার দ্যা টপ’ (Over-the-top)। ওটিটি মিডিয়া সার্ভিস হলো এমন এক ধরনের মিডিয়া সার্ভিস যাতে কোন ডিশ ক্যাবল বা স্যাটেলাইটের প্রয়োজন হয় না। প্রথাগত সকল মাধ্যমকে পাশ কাটিয়ে শুধু ইন্টারনেটের সাহায্যেই গ্রাহক তার মন মতো মিডিয়া উপভোগ করতে পারছেন। তা হতে পারে সিনেমা, গান, যেকোনো অডিও বা ভিডিও, টিভি সিরিজ, ওয়েব সিরিজ থেকে শুরু করে নানা কিছু। এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত বেশিরভাগ যন্ত্রেই এই সেবা উপভোগ করা যায়। মোবাইল, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, আইপ্যাড, ট্যাব অথবা স্মার্ট টিভি, সব কিছুতেই ওটিটি প্ল্যাটফর্ম কার্যকরী। তাই কোন কিছু দেখতে হলে এখন আর টিভির সামনে ঠায় বসে থাকার প্রয়োজন নেই। চাইলেই যেকোনো অবস্থানে নিজের সুবিধামতো উপভোগ করতে পারবেন মিডিয়াগুলো। 

বাংলাদেশের জনপ্রিয় ওটিটি প্ল্যাটফর্মসমূহ 

যতই দিন যাচ্ছে বাংলাদেশে ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর প্রসার যেন বেড়েই চলেছে। ক্রমবর্ধমান ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর মধ্যে দেশীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সব ধরনের প্ল্যাটফর্মই রয়েছে। নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম এর মতো বিশ্বনন্দিত প্ল্যাটফর্মগুলো বাংলাদেশের বাজারের বিশাল একটি অংশ দখল করে রেখেছে। কিন্তু তার পাশাপাশি গত কয়েক বছর যাবত বাংলা ভাষাভিত্তিক কিছু ওটিটি প্ল্যাটফর্ম মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে। সেসকল প্ল্যাটফর্মগুলো সম্পর্কে কিছুটা বিস্তারিত আলোচনা করছি। 

বায়োস্কোপ (Bioscope)

বায়োস্কোপ (Bioscope live tv)

বায়োস্কোপ মূলত বাংলাদেশ ভিত্তিক একটি প্ল্যাটফর্ম। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলো থেকে বায়োস্কোপের সেবা উপভোগ করতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করতে হয়। কিন্তু বাংলাদেশী ব্যবহারকারীদের জন্য তার প্রয়োজন নেই। এই প্ল্যাটফর্মটিতে চাইলেই আপনি দেখতে পারেন লাইভ টিভি। যাতে বাংলা ভাষার প্রায় সকল স্বনামধন্য চ্যানেলই রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে খেলা, সিনেমা, স্পোর্টস হাইলাইটস (Sports highlights), নাটক, ওয়েব সিরিজ, শর্ট কাট সিরিজ সহ নানা কিছু। বিশেষত বাংলা সাহিত্যের বিখ্যাত চরিত্র ফেলুদাকে নিয়েও সিনেমা ও সিরিজের দেখা মিলবে সেখানে। এগুলোর মধ্যে অনেকগুলোই আবার বায়োস্কোপের নিজস্ব প্রযোজনা। 

বায়োস্কোপ প্রাইম (Bioscope Prime)

বায়োস্কোপ প্রাইম মূলত গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীদের জন্য একটি বিশেষ সুবিধা। বায়োস্কোপের অনেক ভিডিওই বিনামূল্যে দেখা যায় না। সেগুলো উপভোগের একমাত্র উপায় হলো গ্রামীণফোনের নির্দিষ্ট কিছু ডাটা প্যাক কেনা। বায়োস্কোপ ডাটা প্যাক কেনার মাধ্যমেই বায়োস্কোপ প্রাইমের সকল ভিডিও আপনার জন্য উন্মুক্ত হয়ে যাবে। কতদিন এ সুবিধা বজায় থাকবে তা নির্ভর করে নির্দিষ্ট ডাটা প্যাকের ওপর। একটি জনপ্রিয় প্যাক হলো ১৮ টাকায় ১ জিবি ডাটা। যার মেয়াদ ৭ দিন। এছাড়াও আরো নানা ধরনের ডাটা প্যাক রয়েছে। 

তবে দেশের বাইরের ব্যবহারকারী বায়োস্কোপ প্রাইম উপভোগ করতে চাইলে তারা সাবস্ক্রাইব করতে পারেন। সেক্ষেত্রে খরচ হবে নিম্নরূপ।

  • প্রথম ৭ দিন – ০ ডলার (ফ্রি ট্রায়াল)।  
  • ১ মাস – ২.৯৯ ডলার।
  • ১ বছর – ২৯.৯৯ ডলার।

হইচই (hoichoi)

হইচই (hoichoi live tv)

হইচই নামক ওটিটি প্ল্যাটফর্মটি ভারতীয় হলেও বর্তমানে বাংলাদেশে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। সম্প্রতি বাংলাদেশী কুশীলবদের দ্বারা অভিনীত ‘মহানগর’, ‘তকদির’ এর মতো কিছু ওয়েব সিরিজ বেশ সাড়া ফেলেছে। তবে শুধু ওয়েব সিরিজ নয়, হইচই এর মুভির সম্ভারও বেশ সমৃদ্ধ। বিশেষত বাংলা ক্লাসিক মুভি যেমন উত্তম-সুচিত্রা অথবা সত্যজিত রায় নির্মিত মুভিগুলো আসলে খুঁজে পাওয়াটা বেশ কঠিন। ইন্টারনেটের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকলেও প্রয়োজনের সময় তা পাওয়া যায় না। তাই কোন বৃষ্টিস্নাত বিকেলে পরিবারের সাথে একটু ভাল সময় কাটাতে চাইলে হইচই হতে পারে একটি নির্ভরতার স্থান। 

তবে শুধু পুরোনো মুভি-সিনেমা নয়, রয়েছে আনকোরা নতুন বাংলা সিনেমার সমাহারা। এপার ও ওপার দুই বাংলা থেকেই। সাধারণ গদ-বাঁধা ঢালিউড ও ভারতীয় বাংলা সিনেমা থেকে কেউ মুক্তি পেতে চাইলে হইচই এ মিলবে উৎকৃষ্ট বিকল্প। এছাড়া তাদের সাজানোর ধরনটাও বেশ সুন্দর। ‘বাংলাদেশ টপ ১০’ , ‘কৌশিক গাঙ্গুলি স্পেশালস’, ‘সেরা স্বস্তিকা’ , ‘প্রিয় প্রসেঞ্জিৎ’ , ‘চিরসবুজ মহানায়ক’ (উত্তম কুমার), ‘মহারাজা তোমারে সেলাম’ (সত্যজিত রায়), ‘ওয়াচ উইথ ফ্যামিলি’ ইত্যাদি নানা ভাগে বিভক্ত তাদের সমাহার। এক নজর চোখ বোলালেই বুঝতে পারবেন আপনি ঠিক কি দেখতে চান। তবে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম হলেও এতে নেই লাইভ টিভি দেখার সুবিধা। যা একে অনেকের পছন্দের তালিকায় একটু পিছিয়ে রাখতে পারে। 

হইচই সাবস্ক্রিপশন ফি 

হইচই এ থাকা বিনোদনের তুলনায় এর সাবস্ক্রিপশন ফি বেশ কমই বলা চলে। তারা সাধারণত দুটি স্কিম অফার করে থাকে।

  • একটি স্ক্রিন, ১ বছর। – ৫০০ টাকা।
  • দুইটি স্ক্রিন, ১ বছর। – ৭০০ টাকা।

প্রাথমিক ভাবে এর খরচ বেশি মনে হলেও বাৎসরিক হিসেবে আসলে এটি বেশ সস্তা। কারণ দৈনিক মাত্র ১.৪ টাকার বিনিময়ে আপনি উপভোগ করতে পারবেন হইচই এর তালিকায় থাকা সকল কিছু। 

মূল্য পরিশোধের উপায়

বাংলাদেশ গ্রাহকরা বিকাশ, ভিসা কার্ড, এমেক্স, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং, মাস্টার কার্ড, নগদ, নেক্সাস, সিটিব্যাংক আইবি, আইবিবিএল, উপায়, ব্যাংক এশিয়া, ওকে ওয়ালেট, এবি ব্যাংক আইবি, আইপে এবং ডিমানি-এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন।

আন্তর্জাতিক সাবস্ক্রাইবাররা গুগল প্লেস্টোর, আই টিউনস, ক্রেডিট কার্ড, পেপাল এবং, আন্তর্জাতিক ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন।

বঙ্গ (Bongo)

বঙ্গ (Bongo live tv app) 

বাংলাদেশী ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর মধ্যে ‘বঙ্গ’ সবচেয়ে আদি প্ল্যাটফর্ম। ২০১৩ সালে আহাদ মোহাম্মাদ ও নাভিদুল হক এর হাত ধরে চালু হয় এই প্রতিষ্ঠানটি। যা ইদানীংকালে বেশ নজরে আসতে শুরু করেছে। উপরে উল্লিখিত দু’টি প্ল্যাটফর্মের মতই এতেও বেশ কিছু মৌলিক কন্টেন্ট রয়েছে। বস্তুত বঙ্গ’ই প্রথম ওটিটি প্ল্যাটফর্ম যারা প্রথম নিজস্ব কন্টেন্ট বানানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। 

বঙ্গ এর আরেকটি বৈশিষ্ট্য উল্লেখযোগ্য। এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মটি বিদেশী মুভির বাংলা ডাবিং এ বেশ কিছুটা জোর দিয়েছে। তাদের ঝুলিতে যেমন রয়েছে হলিউডের মুভি তেমনি রয়েছে তুর্কি সিরিজ। বর্তমানে বাংলাদেশীদের তুর্কি অনুরাগের কারণে বেশ কটি তুর্কি ড্রামা ও সিরিজের বাংলা ডাব তারা এনেছে। এর পাশাপাশি ‘গার্লস স্কোয়াড’ নামক একটি অরিজিনাল সিরিজও তারা তৈরি করে আসছে। তবে বঙ্গ এর হোমপেজে চোখ বোলালে ঢালিউডের সাধারণ সিনেমার আধিক্য কিছুটা চোখে পড়ে। 

বঙ্গ সাবস্ক্রিপশন ফি

বঙ্গ একটি বিশাল প্ল্যাটফর্ম। এতে সব মিলিয়ে ১৫,০০০ এরও বেশি মুভি, ড্রামা, টিভি শো, মিউজিক, ভিডিও, গান রয়েছে। তার মধ্যে ৩,০০০ এর বেশি ভিডিও সম্পূর্ণ ফ্রি। কিন্তু বাকি ভিডিওগুলো উপভোগ করতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করাটা বাধ্যতামূলক। এছাড়া বঙ্গতে সাবস্ক্রাইব করলে রয়েছে এর অ্যাপের মাধ্যমে ভিডিওগুলো ডাউনলোডেরও সুবিধা। এর সাবস্ক্রিপশন ফিঃ-

  • ১ মাস – ৫০ টাকা।
  • ১২ মাস – ৪০০ টাকা।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন কতটা কম মূল্যে কেনা যেতে পারে বঙ্গ সাবস্ক্রিপশন। এর আরেকটি সুবিধা হলো এর মাসিক প্যাকেজ। প্রথমে এক মাস ব্যবহার করে যাচাই করতে পারবেন এর উপভোগ্যতা।

মূল্য পরিশোধের উপায়

বঙ্গ এর মূল্য পরিশোধের পদ্ধতি ঝামেলামুক্ত। সাধারণত তিনটি উপায়ে সাবস্ক্রিপশন এর মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন।

  • বিকাশ।
  • যেকোনো মোবাইল অপারেটর। 
  • গুগল পে এর সাহায্যে যেকোনো আন্তর্জাতিক ভিসা, আমেরিকান এক্সপ্রেস বা মাস্টার কার্ড।

বিঞ্জ (Binge)

বিঞ্জ (Binge live tv)

এই তালিকার সকল ওটিটি প্ল্যাটফর্ম থেকে ‘বিঞ্জ’ অনেকটাই ভিন্নধর্মী। কারণ এর সেবা আর দশটি ওটিটি প্ল্যাটফর্মের মতো লাইভ টিভি, মুভি, সিরিজ ইত্যাদি ভিডিও দেখানোতেই সীমাবদ্ধ নয়। তার পাশাপাশি এর রয়েছে একটি বিশেষ যন্ত্র। ‘বিঞ্জ’ নামক এই যন্ত্রটি কিনে টিভির সাথে জুড়ে দিলেই আপনার টিভি হয়ে উঠবে ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য প্রস্তুত। সাধারণত স্মার্ট টিভি গুলো এমনিতেই ওটিটি প্ল্যাটফর্ম এর ভিডিও দেখাতে পারে। কিন্তু বিঞ্জ এর সাহায্যে স্মার্ট টিভি বাদেও এটি সম্ভব। বিঞ্জ এর সাহায্যে আপনি আপনার টিভি ও ফোনকে যুক্ত করতে পারবেন। অতঃপর আপনার ফোনের বিঞ্জ একাউন্ট থেকে যেকোনো ভিডিও ছেড়ে দিলেই তা চলবে টিভিতে। 

বিঞ্জ এ রয়েছে দেশ-বিদেশের ১৫০ এর বেশি লাইভ টিভি চ্যানেল। এছাড়াও ওয়েব সিরিজ, ফিল্ম, মুভি, ড্রামা ও বিঞ্জ এর মৌলিক কন্টেন্ট সহ দেখা যাবে অনেক কিছু। সবচেয়ে বড় যেই বিষয়টি তা হলো বিঞ্জ এর সেবা নেওয়ার সময় আপনাকে কোন বিজ্ঞাপনেরই মুখোমুখি হতে হবে না। এছাড়া চাইলে স্বাভাবিক ভাবে সরাসরি স্মার্ট টিভি ও মোবাইলেও বিঞ্জ ব্যবহার করতে পারবেন। 

বিঞ্জ ডিভাইস এর মূল্য ও সাবস্ক্রিপশন

বিঞ্জ ডিভাইসটি আপনি চাইলে রবিশপ, পিকাবু, প্রিয়শপ, বিডিশপ ইত্যাদি বেশ কিছু অনলাইন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কিনতে পারবেন। ডিভাইসটির সাধারণ মূল্য ৪,৯৯৯টাকা। তবে অফার দামে ৩,৯৯৯ টাকায় পাওয়া যেতে পারে। এছাড়া সাবস্ক্রিপশন ফি নিম্নরুপ।

  • বড় স্ক্রিন (টিভি), ১ মাস – ৩৯৯ টাকা।
  • ছোট স্ক্রিন (মোবাইল), ১ মাস – ৭৫ টাকা (এয়ারটেল ও রবি ব্যবহারকারীদের জন্য)। অন্য অপারেটরের জন্য ৯৯ টাকা।

মূল্য পরিশোধের উপায়

যে শপ থেকে ডিভাইস কিনবেন তাদের কাছেই ডিভাইসের মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন। এছাড়া ছোট স্ক্রিনের সাবস্ক্রিপশন বিল নিম্নোক্ত তিনটি উপায়ে পরিশোধ করতে পারেন। 

টফি (Toffee)

টফি (Toffee live tv app)

এই তালিকার অন্যান্য ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো থেকে টফি কিছুটা ব্যাতিক্রমী। কারণ বাকি সকল প্ল্যাটফর্ম কম্পিউটার ও মোবাইল উভয় ফ্ল্যাটফর্মেই ব্যবহার করা যায়। কিন্ত টফি শুধুমাত্র অ্যান্ড্রয়েডেই ব্যবহারযোগ্য। তাই বলে অবশ্য এর জনপ্রিয়তা বাড়ার মাত্রা থেমে নেই। মাত্র বছর খানেকেরই মধ্যেই এটি বেশি পরিচিত একটি নাম হয়ে উঠেছে।

বাংলাদেশের তুর্কিভক্তি টফি অ্যাপও কাজে লাগিয়েছে। তুর্কী সিরিয়াল কুরুলুস ওসমানকে তারাই প্রথম বাংলা ভাষায় ডাব করে সামনে এনেছে। এর বাইরেও বিভিন্ন খেলা লাইভ স্ট্রাইম করার সময় বাঙালী এখন টফি অ্যাপের ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল। তবে এর পাশাপাশি এর আরেকটি দিকও অন্যন্য। টফি অ্যাপে আপনি চাইলেই আপনার নিজস্ব চ্যানেল খুলতে পারবেন। এই সুবিধাটি হয়তো টফিকে কিছুটা বাড়তি ব্যবহারকারী পেতে সাহায্য করেছে। সব কিছুর পাশাপাশি অ্যাপটিতে প্রচুর চ্যানেল থাকার কারনে লাইভ ফুটবল দেখা, সিনেমা দেখা, ক্রিকেট ম্যাচ দেখা থেকে শুরু করে আরও অনেক কিছু উপভোগ করা যায় খুব সহজেই। তাই খুব অল্প সময়েই টফি অ্যাপ বাংলাদেশে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

টফি সাবস্ক্রিপশন ফি

প্রথম ৩০ দিনের জন্য টফি সম্পূর্ণ ফ্রি। তবে এই ট্রায়াল পিরিয়ড (Trial period) শেষ হলে প্রিমিয়াম সার্ভিস পেতে স্বভাবতই টাকা গুণতে হবে। দ্যা বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড (TBS) এর তথ্য অনুসারে এর পরিমাণ দৈনিক ৩ টাকা। 

আড্ডাটাইমস (Addatimes)

আড্ডাটাইমস (Addatimes)

আড্ডাটাইমস আরেকটি ভারতীয় বাংলা প্ল্যাটফর্ম যা ধীরে ধীরে এদেশে জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে। তবে এর গ্যালারি খুব বেশি সমৃদ্ধ নয়। বর্তমানে তাদের সেবা মুভি, ওয়েব সিরিজ  ও গানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। তবে পরিচিত অপরিচিত ভারতীয় বাংলা সিনেমার জন্য এটি বেশ ভাল অপশন। যে যাই বলুক না কেন, এদেশে ভারতীয় বাংলা সিনেমার আবেদন এক সময় ছিল প্রখর। এখনো হয়তো অনেকেই একে বিনোদনের উৎস হিসেবে মনে করেন। নিয়মিত না দেখা হলেও নিছক স্মৃতিচারণার বসে যদি কিছু দেখতে ইচ্ছা করে, তাহলে আড্ডাটাইমস বেশ কাজে আসবে। 

এছাড়া গানের জন্যও এটি হতে পারে একটি ভাল অপশন। শুধু তাই নয়, যারা বাংলা ভৌতিক মুভি দেখতে পছন্দ করেন তারা এখানে পাবেন গুটিকয়েক পছন্দ। বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যার সহজলভ্যতা বেশ কম। 

আড্ডাটাইমস সাবস্ক্রিপশন ফি

আড্ডাটাইমস এর সাবস্ক্রিপশন ফি নিম্নরুপঃ

  • ১ স্ক্রিন, ১ বছর- ৩৯৯ টাকা।
  • ২ স্ক্রিন, ১ বছর – ৫৯৯ টাকা।

জিফাইভ (ZEE5)

জিফাইভ (ZEE5)

এই পুরো লেখাটিতে মূলত বাংলা ভাষার ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়েই কথা বলা হয়েছে। তবে জিফাইভ এমন একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম যাতে বাংলার পাশাপাশি রয়েছে আরো অনেক ভাষার কন্টেন্ট। এই প্ল্যাটফর্মটিতে একাধারে রয়েছে হিন্দি, বাংলা, তেলেগু, তামিল, মারাঠি, পাঞ্জাবি, কান্নাডা, মালায়াম, ভোজপুরি, ওডিয়া ও আরবি ভাষার ভিডিও। তবে এতসব ভাষার ভিডিও থাকলেই প্ল্যাটফর্মটিতে প্রাধান্য পেয়েছে হিন্দি ও বাংলা ভাষাই।

আপনার বাসায় যদি হিন্দি অথবা বাংলা নানা সিরিয়াল কিংবা রিয়েলিটি শো এর ভক্ত থেকে থাকে তবে জিফাইভ এর সাবস্ক্রিপশন বৃথা যাবে না। তবে শুধু সিরিয়াল দিয়েই পূর্ণ নয় জিফাইভ এর গ্যালারি। রয়েছে অসংখ্য ওয়েব সিরিজ, টিভি শো ও ভিডিও।  বাংলা ও হিন্দি দু’ ভাষাতেই রয়েছে বেশ কিছু অরিজিনাল। একজন বলিউড ফ্যানের কাছে সব মিলিয়ে জিফাইভ হতে পারে একটি ভাল বিনোদনের মাধ্যম। 

জিফাইভ সাবস্ক্রিপশন ফি 

জিফাইভ এর একটি বৈশিষ্ট্য হলো এর প্রতিটি সাবস্ক্রিপশন প্ল্যানই ৫টি স্ক্রিনের জন্য। কারো কাছে এটি সুবিধাজনক। অনেকের কাছে এটি বেশ বিরক্তিকর। স্বভাবতই যেই ধারনাটি মাথায় আসে তা হলো এক অথবা দুই স্ক্রিনের প্যাকেজ থাকলে হয়তো ফি আরো কম হতো। তবে মজার ব্যাপার হলো ৫ স্ক্রিনের জন্য ফি’টা খুব একটা বেশি নয়।

  • ৫ স্ক্রিন, ১ বছর – ৭২০ টাকা।
  • ৫ স্ক্রিন, ১ মাস – ৬০ টাকা।
  • ৫ স্ক্রিন, ১ সপ্তাহ – ১৩.১৩ টাকা। (শুধু রবি ও এয়ারটেল ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য)

চরকি (Chorki)

চরকি (Chorki live tv)

চরকি ওটিটি প্ল্যাটফর্মের ওয়েবসাইটে ঢুকলেই চোখে পড়ে ‘বাজার গরম’ লেখাটি। এটি মূলত একটি ক্যাটাগরির নাম। তবে এর সাথে বর্তমানে চরকির অবস্থার বেশ মিল রয়েছে। নতুন প্ল্যাটফর্ম হলেও দ্রুত সাড়া ফেলে বাজার যেন গরম করে ফেলেছে চরকি। এর যাত্রা শুরুর পর পেরিয়েছে মাত্র এক মাস। এর মধ্যেই তাদের ওয়েবসাইটে গেলে দেখা মিলবে নানা সিনেমা, সিরিজ, ডকুমেন্টারি ও গানের।

বর্তমানে চরকিতে ২০০ এর বেশি কন্টেন্ট রয়েছে। সময়ের সাথে আশা করি যা বাড়বে। এই কন্টেন্টগুলোর সিংহভাগই হলো দারূণ কিছু বাংলা সিনেমা। বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সেরা কিছু কাজ পাওয়া যাবে চরকিতে। চরকির হোমপেজে ঘুরলে চঞ্চল চৌধুরী, মোশাররফ করিম, তিশা, জয়া আহসান এমন গুণী কুশীলবদের চেহারাই বেশি চোখে পড়ে। এর পাশাপাশি আছে বিদেশি কন্টেন্টও। শুধু তাই নয়, রয়েছে কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের বেশ কিছু নাটক। আজ রবিবার, নক্ষত্রের রাত, প্যাকেজ সংবাদ, তারা তিন জন, গৃহসুখ প্রাইভেট লিমিটেড এমন বেশ কিছু চরকিতে উপভোগ করা যাবে ফ্রিতে। সব মিলিয়ে এই প্ল্যাটফর্মটি যে ভবিষ্যতে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠবে তা মোটামুটি নিশ্চিত ভাবে বলা যায়। 

চরকি সাবস্ক্রিপশন ফি

চরকি সাবস্ক্রিপশন সম্পর্কে একটু বিস্তারিত না বললেই নয়। চরকি এর মোট ৪টি সাবস্ক্রিপশন প্ল্যান রয়েছে। প্রতিটি প্ল্যানেই বিজ্ঞাপণ ছাড়া কন্টেন্ট দেখা ও ডাউনলোডের সুযোগ রয়েছে। চারটি প্ল্যান হলোঃ 

  • স্টার্টার (Starter) ঃ ৩০ দিন মেয়াদ। মূল্য মাত্র ৫০ টাকা। ৪টা ডিভাইস থেকে একাউন্টে লগইন করা যাবে। যেকোনো একটি ডিভাইস থেকে ভিডিও দেখা যাবে।
  • অর্ধ-বাৎসরিকঃ ৬ মাস মেয়াদ। মূল্য ২৯৯ টাকা। একই ভাবে ৪টা ডিভাইস থেকে লগইন ও একটি থেকে সেবা নিতে পারবেন।
  • বাৎসরিকঃ মেয়াদ ১ বছর। মূল্য ৪৯৯ টাকা। ৫টি ডিভাইস থেকে লগইনযোগ্য ও যেকোনো একটি ডিভাইস থেকে উপভোগযোগ্য।
  • বাৎসরিক প্লাসঃ মেয়াদ ১ বছর। মূল্য ৭৯৯ টাকা। ৭টি ডিভাইস থেকে লগইন করতে পারবেন। উপভোগ করতে পারবেন একই সাথে ২টি ডিভাইস থেকে।

টেলিফিক্স (Telefix)

টেলিফিক্স (Telefix) 

এই তালিকার সকল ওটিটি প্ল্যাটফর্মই বেসরকারি মালিকানাভুক্ত। তবে একমাত্র ব্যাতিক্রম টেলিফিক্স। টেলিফিক্স বাংলাদেশের একমাত্র সরকারি মোবাইল অপারেটর কোম্পানি টেলিটক এর মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। এই প্ল্যাটফর্মটির সকল কন্টেন্টই বাংলা। তার মধ্যে রয়েছে ওয়েব সিরিজ, টেলিফিল্ম, ড্রামা, সিরিয়াল, মিউজিক ভিডিও, মুভির গান, সঙ্গীত অনুষ্ঠান, ইন্টারভিউ, ডকুমেন্টারি, রিয়েলিটি শো, টক শো, পাপেট শো, কুকিং শো, আলোচনা অনুষ্ঠান ও কমেডি ড্রামা ও সিরিয়াল। সব মিলিয়ে দেশীয় বাংলা কন্টেন্ট এর বেশ সমৃদ্ধ সমাহার রয়েছে টেলিফিক্স এ।

টেলিফিক্স এর সেবা এমনকি চাইলে ইউএসএসডি কোডের সাহায্যেও চালু করা যায়। আর অ্যান্ড্রয়েড ফোন থাকলে সরাসরি অ্যাপের মাধ্যমে সকল সেবাই উপভোগ করা যায়। ইউএসএসডির সাহায্যে সেবা চালু করতে ‘START FLIX’ লিখে ৯৪৯৪ নম্বরে পাঠিয়ে দিলেই চলবে। সেবা বন্ধ করতে ‘STOP FLIX’ লিখে পাঠাতে হবে একই নম্বরে। 

টেলিফিক্স সাবস্ক্রিপশন ফি

টেলিফিক্স সেবাটি প্রথমবার চালু করার পর প্রথম ৩০ দিন সকলে গ্রাহকের জন্যই ফ্রি। এরপর সাবস্ক্রিপশন ফি নিম্নরূপঃ 

  • দৈনিকঃ ২.৬৭ টাকা।
  • সাপ্তাহিকঃ ১৩.৩৩ টাকা।
  • মাসিকঃ ৩৯.৯৮ টাকা। 

বলা বাহুল্য যে, এটি যেহেতু টেলিটকের সেবা তাই এতে সাবস্ক্রাইব করতে হলে শুধুমাত্র টেলিটক নম্বরের সাহায্যেই সাবস্ক্রাইব করতে হবে।

জাগোবিডি (Jagobd)

জাগোবিডি (Jagobd) 

ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো সাধারণত শুধু টিভি চ্যানেল নয় বরং আরো অনেক সেবা দিয়ে থাকে। লাইভ টিভি তাদের সেবা তালিকার একটা ছোট অংশ মাত্র। তবে জাগোবিডি নামক প্ল্যাটফর্মটি শুধু লাইভ টিভি সেবাই দিয়ে থাকে। তাই আপনি যদি অন্য সকল কিছু বাদ দিয়ে শুধু লাইভ টিভি দেখতে চান তবে এই প্ল্যাটফর্মটির সেবা নিতে পারেন। 

জাগোবিডি প্ল্যাটফর্মে রয়েছে এটিএন বাংলা, বাংলা ভিশন, বৈশাখি টিভি, বিটিভি, চ্যানেল টুয়েন্টি ফোর, চ্যানেল নাইন, চ্যানেল আই, সিএনএন বাংলা, ডিবিসি নিউজ, ডিডব্লিউ নিউজ, যমুনা টিভি, সময় নিউজ, সংসদ টিভি, ভয়েজ অফ আমেরিকা সহ আরো নানা চ্যানেল। এছাড়াও এতে রয়েছে কিছু বাংলা রেডিও চ্যানেলের ফ্রিকুয়েন্সি, যার সাহায্যে আপনি রেডিও শুনতে পারবেন। এই সেবাটি বেশ অন্যন্য বলা চলে। এছাড়াও বেশ কিছু স্বনামধন্য পত্রিকার অনলাইন ভার্সনও পাবেন এই প্ল্যাটফর্মটিতে। এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মটির কোন সাবস্ক্রিপশন ফি নেই। পুরোপুরি বিনামূল্যের সেবাগুলো আপনি উপভোগ করতে পারবেন যখন খুশি তখনি। 

শেষকথা

আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর তুমুল জনপ্রিয়তার ভীড়েও বাংলাভাষী প্ল্যাটফর্মগুলো বেশ ভালই বিস্তার লাভ করছে। তবে সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া বাংলা ভাষাভিত্তিক ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর টিকে থাকাটা কঠিন হয়ে যাবে। ডিজিটাল বিশ্বে সবকিছুই যে ডিজিটাল হয়ে উঠবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর ভবিষ্যতটা তাই ওটিটি প্ল্যাটফর্মের। তাই আসুন, আমরা দেশীয় ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোকে সহায়তা করে। তাদের তৈরি করা কন্টেন্টগুলো যথাযথ মূল্য পরিশোধ করে উপভোগ করি।

অনবরত জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১) ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো ভালভাবে ব্যবহার করার জন্য কি রকম গতির ইন্টারনেট সংযোগ প্রয়োজন?

উত্তরঃ সকল সেবা বিনা বাঁধায় ব্যবহার করতে চাইলে আপনার নূন্যতম ৫ এমবিপিএস রিয়েল আইপির ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করা উচিত। 

২) ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোতে কি স্ক্রিন-রেকর্ড বা স্ক্রিন-শেয়ার ব্যবহার করে অনেকের সাথে দেখা যায়?

উত্তরঃ এ সকল প্রযুক্তির ব্যাপারে ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোর নির্মাতারা অবগত। তাই এসব প্রযুক্তি এক্ষেত্রে কোন কাজে আসে না। 

৩) আমি টাকা জমা দিয়েছি কিন্তু একাউন্ট এক্টিভেট হয় নি। এক্ষেত্রে কি করণীয়?

উত্তরঃ অতি দ্রুত সংশ্লিষ্ট ওটিটি প্ল্যাটফর্মের সাপোর্ট হটলাইনে ফোন করুন।

৪) সকল কন্টেন্ট কি আমি যেকোনো স্থান থেকেই দেখতে পারবো?

উত্তরঃ বাংলাদেশের ভেতর সকল কন্টেন্ট বাধাহীন ভাবে দেখতে পারবেন। তবে পৃথিবীর নানা অঞ্চলে নানা বিধি নিষেধের কারণে অনেক কন্টেন্ট দেখতে বাঁধার সম্মুখীন হতে পারেন। 

৫) ওটিটি প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্টগুলো কি কোন নীতিমালা বা সেন্সরশীপের আওতাভুক্ত?

উত্তরঃ ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ইতোমধ্যে বড় পর্দা ও টিভিতে মুক্তি পাওয়া নানা কন্টেন্ট পরিবেশন করা হয়। সেগুলো আগে থেকেই যথাযথ সেন্সর বোর্ড এর অনুমোদনপ্রাপ্ত। তবে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে অরিজিনাল কন্টেন্ট এর জন্য এখনো কোন নীতিমালা পুরোপুরি কার্যকরী নয়।

রিলেটেড আর্টিকেল গুলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button