জমিজমাটিপস

জমির হিসাব বের করার নিয়ম ও জমি মাপার পদ্ধতি 

বর্তমানে জমি কোনো ব্যক্তি বা প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হয়। তবে “জমি” নামক এই সম্পদের পরিমাপ করতে বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন জটিলতার সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সবচেয়ে বেশি জটিলতা দেখা দেয় জমির পরিমাপ সংক্রান্ত ত্রুটি-বিচ্যুতির কারণে। এই ধরণের ত্রুটি-বিচ্যুতি সংক্রান্ত জটিলতা থেকে শত্রুতা, ঝামেলা, মামলা থেকে শুরু করে প্রাণনাশের ঘটনা পর্যন্ত ঘটতেও দেখা যায় দেশে। সুতরাং, জমির পরিমাপ সংক্রান্ত ত্রুটি-বিচ্যুতি থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য জমি মাপার পদ্ধতি ও জমির হিসাব নিকাশ করার সম্যক জ্ঞান থাকা জরুরি। আজকের আর্টিকেলে আমরা জমির হিসাব বের করার নিয়ম ও জমি মাপার পদ্ধতি সম্বন্ধে বিস্তারিত ধারণা লাভ করার চেষ্টা করবো।

জমি পরিমাপ করার পদ্ধতি অঞ্চল ভেদে ভিন্ন প্রকার হয়। তবে বাংলাদেশে সাধারণত দুই ধরনের পদ্ধতিতে জমি পরিমাপ করা হয়।

  • চেইন বা গান্টার শিকল পদ্ধতি
  • ফিতা দিয়ে পরিমাপ পদ্ধতি বা ফিতা পদ্ধতি 

সূচিপত্রঃ

চেইন বা গান্টার শিকল পদ্ধতি

ফরাসী বিজ্ঞানী এডমন্ড গান্টা ইস্পাতের শিকল দিয়ে জমি পরিমাপের পদ্ধতি আবিস্কার করেন। তার নামানুসারে এই পদ্ধতি কে গান্টার শিকল পদ্ধতি বলা হয়। আমাদের দেশে গান্টার পদ্ধতি অধিক জনপ্রিয় এবং সরকারি ভাবে জমি পরিমাপের সময় গান্টার শিকল পদ্ধতিতে-ই জমির পরিমাপ করা হয়।

ফিতা পদ্ধতি 

বর্তমানে প্রচলিত আধুনিক লম্বা যে ধরনের ফিতা দিয়ে দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ পরিমাপ করা হয়, সেই ফিতার সাহায্যে জমির পরিমাপ কে ফিতা পদ্ধতি বলা হয়। সাধারণত জমির মালিকের প্রয়োজনে ব্যক্তি বা প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে আমিন দ্বারা এই ধরনের পরিমাপ গুলো করা হয়।

চেইন বা গান্টার শিকল পদ্ধতিতে জমির পরিমাণ নির্ণয় 

চেইন বা গান্টার শিকল পদ্ধতিতে জমির পরিমাপ করার ক্ষেত্রে এই পদ্ধতির আবিষ্কারক এডমন্ড গান্টার একটি শিকল তৈরি করেন। যার মাধ্যমেই তিনি এই পদ্ধতির প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। 

২০.৩১ মিটার বা ফুট দৈর্ঘ্যের এই শিকল কে ১০০ ভাগে ভাগ করা হলে, প্রতিটি ভাগ কে লিঙ্ক, জরীপ বা কড়ি হিসেবে অভিহিত করা হয়। 

গান্টার শিকলের প্রতি ১ লিঙ্ক বা ৭.৯ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যের ১০ টি চেইন ও প্রস্থে ১ টি চেইনের গুণফল = ১০ বর্গ চেইন।  আবার ১০ বর্গ চেইন = ১ একর গান্টার। 

গাণিতিকভাবেঃ 

১ টি চেইন বা ৭.৯ ইঞ্চি × ১০ × ১ = ৭৯.২ ইঞ্চি = ১০ বর্গ চেইন = ১ একর গান্টার

গান্টার শিকলে প্রতি ১০ লিঙ্ক পরপর নস বা ফুলি স্থাপন করা হয়। 

‌‌‌‌‌‌‌লিঙ্ক ইঞ্চি বা ফুট
১০  ৭৯.২ বা ৬.৭
২০ ১৫৮.৪ বা ১৩.২
৩০ ২৩৭.৩ বা ২০.২
৪০ ৩১৬.৮ বা ২৬.৪ 
৫০ ৩৯৬.০ বা ৩৩
৮০ ৬৩৩.৯ বা ৫৪.৮ 

আমরা জানি, 

১ গান্টার শিকল ১০০ লিঙ্ক
১০০০ বর্গ লিঙ্ক ১ শতক
১০০০০০ বর্গ লিঙ্ক ১ একর

আমরা যখন আবার, ফিতা পদ্ধতিতে পরিমাপ শিখবো তখন শতক ও একর সম্বন্ধে আরও ক্রমেই বিস্তারিত জানবো।

ফিতা পদ্ধতিতে জমি পরিমাপ করার পদ্ধতি 

ফিতা দিয়ে জমির পরিমাপ তুলনামূলক অধিক বোধগম্য এবং আমাদের বাস্তব জীবনের সাথে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাদৃশ্য খুঁজে পাই। সাধারণত বর্গগজ ও বর্গফুট পদ্ধতিতে জমির পরিমাপ করার পদ্ধতি কে ফিতা পদ্ধতি বলা হয়

জমির আকৃতির ওপর ভিত্তি করে অর্থাৎ বর্গাকার, আয়তাকার বা ত্রিভুজাকৃতির ইত্যাদি তথ্য জানলে পরিমাপ অনেক সহজ হয় তুলনামূলক। কারণ নির্দিষ্ট আকারের ক্ষেত্রফল নির্ণয় করে খুব সহজেই তার পরিমাপ নির্ণয় করা যায়। 

বর্গাকৃতির জমির ক্ষেত্রে : যেকোনো দুটি দিকের গুণফল।

আয়তাকার আকৃতির ক্ষেত্রে : দৈর্ঘ্য × প্রস্থ

ত্রিভুজাকৃতির ক্ষেত্রে : ত্রিভুজের তিনটি বাহুর অর্ধ-পরিসীমা থেকে তিনটি বাহুর বিয়োগফলের গুণফলের বর্গমূল । 

গাণিতিকভাবে : √ (S (S-a) (S-b) (S-c))

এখানে, 

S = তিনটি বাহুর অর্ধ পরিসীমা 

a, b, c = ত্রিভুজের যথাক্রমে তিনটি বাহু

জমি পরিমাপের সাধারণ সূত্র 

জমি পরিমাপ করতে হলে একটি সর্বজনীন সূত্র ব্যবহার করা হয়। সেটি হচ্ছে, একাধিক দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যুক্ত জমির ক্ষেত্রে জমির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ ফুট হিসেবে নির্ণয় করতে হবে সর্বপ্রথম। যদি চারপাশের তথা দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের পরিমান সমান না হয়, সেক্ষেত্রে জমির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের গড় নির্ণয় করতে হবে। অত:পর দৈর্ঘ্যের ও প্রস্থের গড়ের গুণফল কে ৪৩৬.৫ দিয়ে ভাগ করতে হবে। তাহলেই জমির শতাংশ এর মান পাওয়া যাবে।

জমি পরিমাপের সূত্রের গাণিতিক রূপ 

ধরন সূত্র
জমির শতাংশ (দৈর্ঘ্য গড় × প্রস্থের গড়) ÷ ৪৩৬.৫
জমির কাঠা  জমির ক্ষেত্রফল ÷ ৭২০

জমির শতাংশ কে কাঠাতে রূপান্তর করতে গেলে সূত্রের কিছু টা ভিন্নতা দেখা যায়। জমি সংক্রান্ত যাবতীয় নথিপত্রের ক্ষেত্রে সব নথিপত্রে সাধারণ কয়েকটি উপায়ে জমির পরিমাপ উল্লেখ করা থাকে। সেগুলো হচ্ছে,

  • শতাংশ
  • কাঠা
  • বিঘা
  • একর

শতাংশ, কাঠা, বিঘা ও একরের মধ্যে সম্পর্ক 

আমরা যদি জমির পরিমাপ কে ক্ষুদ্রতম একক শতাংশ হিসেবে ধরে থাকি। তবে, 

১ কাঠা  ১.৬৫ শতাংশ 
৩৩ শতাংশ ১ বিঘা 
১ বিঘা ২০ কাঠা 
৬০.৬ কাঠা  ১ একর
১ একর  ৩.০৪ বিঘা
১০০ শতাংশ ১ একর 

আধুনিক বর্গগজ ও বর্গফুট হিসেবে জমির পরিমাপ নির্ণয় 

  • একরের হিসেবে : ৪৩৬৫০ বর্গফুট = ৪৮৪০ বর্গগজ। সুতরাং  ৪৮৪০ বর্গগজ = ১ একর = ৪৩৬৫০ বর্গফুট।
  • বিঘার হিসেবে : ১৪৫২০ বর্গফুট = ১৬১৩ বর্গগজ। সুতরাং ১৬১৩ বর্গগজ = ১ বিঘা = ১৪৫২০ বর্গফুট। 
  • কাঠার হিসেবে: ৭২১.৪৬ বর্গফুট = ৮০.১৬ বর্গগজ। সুতরাং ৭২১.৪৬ বর্গফুট = ১ কাঠা = ৮০.১৬ বর্গগজ। 
  • ছটাকের হিসেবে : ৪৫.০৯ বর্গফুট = ৫.০১ বর্গগজ। সুতরাং ৪৫.০৯ বর্গফুট = ১ ছটাক = ৫.০১ বর্গগজ। 
  • বর্গমিটারের হিসেবে : ১ বর্গমিটার = ১০.৭৬ বর্গফুট = ১.১৯৩ বর্গগজ।

জমি পরিমাপের আঞ্চলিক পদ্ধতি

ইতিঃপূর্বে আমরা জমি পরিমাপের প্রধান দুইটি পদ্ধতির সাথে আঞ্চলিক পদ্ধতির কথাও উল্লেখ করেছিলাম। ঠিক তারই ফলশ্রুতিতে, আমরা পরিচিত হবো কানি পদ্ধতিতে পরিমাপের সাথে। অঞ্চল ভেদে ভিন্ন এই কানি পদ্ধতিতে পরিমাপের ক্ষেত্রে যুক্ত হয়েছে নতুন একটি একক, যার নাম গন্ডা। এটি প্রাচীন গ্রামবাংলার বহুল প্রচলিত একটি একক। 

কানিপদ্ধতিতে পরিমাপ সাধারণত দুই প্রকার:

  • কাচ্চা কানি
  • সাই কানি

কাচ্চা কানি

৪০ শতাংশে এক কাচ্চা কানি হয়। ৪০ শতাংশের কারণে এই কানি কে ৪০ কানি ও বলা হয়

সাই কানি

অঞ্চলভেদে ১২০ অথবা ১৬০ শতাংশে এক কানি ধরা হয়। 

কানি ও গন্ডার এককের মধ্যে সম্পর্ক 

  • ১ কড়া = ২১৬ বর্গফুট
  • ৪ কড়া = ৮৬৪ বর্গফুট
  • ৮৬৪ বর্গফুট = ১ গন্ডা
  • ১ কানি = ১৭২৮০ বর্গফুট 
  • ১ কানি = ১৯৩৬ বর্গগজ 
  • ১ কানি = ১৬১৫ বর্গমিটার
  • ১ কানি = ৪০ বর্গলিঙ্ক
  • ৩৩০০০ বর্গলিঙ্ক = ৩৩ শতাংশ বা ২০ কাঠা বা ১ বিঘা

কানি, গন্ডার এককের সাথে শতাংশ, কাঠা, বিঘা ও একরের সম্পর্ক

৪৫ বর্গফুট = ২০ গন্ডা

১ গন্ডা = ৪ কড়া

১ কড়া = ২১৬ বর্গফুট

১৭২৮০ বর্গফুট = ১ কানি

২ কানি ১০ গন্ডা = ১ একর

 ১ একর = ৩ বিঘা ৮ ছটাক

আবার,

২০ গন্ডা = ১ ছটাক

১৬ ছটাক = ১ কাঠা

১ কাঠা = ৭২০ বর্গফুট 

১৪৪০০ বর্গফুট = ১ বিঘা

৩.০৩ বিঘা = ১ একর 

২.৪৭ একর = ১ হেক্টর

আধুনিক কিলোমিটার, সেন্টিমিটার, বর্গমিটার, মাইক্রোমিটার, মাইল, গজ ও ফুটের হিসাব

১ কিলোমিটার = ১০০০ মিটার

১০০০ মিটার = ১০৯৩ বর্গগজ

১৭৬০ বর্গগজ = ১ মাইল

১ মাইল = ১.৬ কিলোমিটার 

আবার,

১ গজ = ৩ ফুট

১ ফুট = ১২ ইঞ্চি

১ ইঞ্চি = ২.৫ সেন্টিমিটার 

১ মিটার = ১০০ সেন্টিমিটার 

১ সেন্টিমিটার = ১০ মিলিমিটার 

১ মিলিমিটার = ১০০০ মাইক্রোমিটার

১ মাইক্রোমিটার = ১০০০ ন্যানোমিটার 

শেষকথা

জমির সঠিক হিসাব ও সঠিক হিসাব বের করার নিয়ম বেশ জটিল। উপরিউক্ত অনুচ্ছেদ গুলো তে আমরা জমি পরিমাপের এই জটিল প্রক্রিয়া সম্বন্ধে অবহিত হলাম। জমির পরিমাপ সম্বন্ধে পরিষ্কার ধারণা রাখতে প্রত্যেকটি নিয়মে পরিমাপের পদ্ধতি ও গাণিতিক পদ্ধতি সম্বন্ধে বিস্তারিত অবশ্যই সঠিকভাবে জেনে নিতে হবে। 

অনবরত জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী 

 ১. গান্টার চেইন না-কি ফিতা পদ্ধতি, কোনটা ব্যবহার তুলনামূলক সহজ?

উত্তর: গান্টার চেইন ও ফিতা পদ্ধতি দুইটাই সহজ। তবে ফিতা পদ্ধতিতে আধুনিক হিসাব নিকাশ হওয়ার কারণে বর্তমানে অধিক বোধগম্য।

২. শিকল পদ্ধতি ও ফিতা পদ্ধতির ব্যবহার ক্ষেত্র কোথায়?

উত্তর: শিকল পদ্ধতি সাধারণত সাধারণত সরকারি অনেক বড়ো জমি পরিমাপের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। আর ফিতা পদ্ধতি ব্যক্তিগত বা প্রাতিষ্ঠানিক তুলনামূলক ছোট আকৃতির জমির ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।

৩. জমি পরিমাপের ক্ষেত্রে নির্ভুলতম পদ্ধতি কোনটা? 

উত্তর: জমির পরিমাপের হিসেব বুঝে সঠিক তথ্য পরিমাপ করলে প্রতিটি পদ্ধতির সাহায্যেই নির্ভূলভাবে ভাবে পরিমাপ করা যায়।

৪. অনলাইন ক্যালকুলেটরের সাহায্য জমির পরিমাপ কতটা নির্ভরযোগ্য? 

উত্তর: ক্যালকুলেটরের চাহিদানুযায়ী যদি সঠিক তথ্য ইনপুট দেওয়া যায়, তবে জমির হিসাব অবশ্যই নির্ভরযোগ্য হবে। তারপর ও নিজ হাতে পূনঃনিরীক্ষণ করে নেওয়া অধিক যুক্তিসঙ্গত। 

৫. জমি পরিমাপের সর্বাধিক কার্যকরী একক কোনটি?

ত্তর: জমি পরিমাপের সবচেয়ে বহুল প্রচলিত ও কার্যকরী একক হলো শতাংশ বা শতক। তাছাড়া আরও বড়ো একক হিসেব কাঠা, বিঘা ও একরের বহুল ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

Sawon

SEO Solopreneur

রিলেটেড আর্টিকেল গুলো

Back to top button