খাবারলাইফ স্টাইলস্বাস্থ্য

থানকুনি পাতার উপকারিতা, ব্যবহার এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

থানকুনি পাতা স্বাদে তিক্ত এবং কিছুটা মিষ্টি। এটি জিনকে লালন করে, ঠাণ্ডা রাখে, ডিটক্সিফাই করে এবং মলমূত্র যাওয়ার রাস্তা পরিষ্কার করে। এছাড়াও লিভার এবং প্লীহের সক্রিয়তায় বেশ উপকার করে এই পাতা। তাছাড়া সাধারণত রক্তের উদগিরণ, ডায়রিয়া, আমাশয়, স্রাব, ফোড়া এবং ফুসকুড়ি রোগের চিকিৎসার জন্য ঔষুধ এবং এন্টিসেপটিক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। থানকুনি পাতায় বিটা ক্যারোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, পটাসিয়াম, দস্তা এবং ভিটামিন বি-১, বি-২, বি-৩, সি এবং কে ছাড়াও এশিয়াটিকোসিড, ক্ষারক, ট্যানিন এবং ফ্রি অ্যামিনো অ্যাসিড স্যাপোনিন থাকে যা গর্ভাবস্থায় সৃষ্ট ত্বকের রেখা কমাতে বা ওজন এবং চর্বিযুক্ত টিস্যু প্রদাহ হ্রাস করতে বহুল পরিচিত প্রসাধনীগুলোতে ব্যবহৃত হয়। ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ ফার্মাকোলজি জানায়, ক্ষত এবং ত্বকের আলসারগুলোতে সূক্ষ্মভাবে তাজা পাতা প্রয়োগ করলে অসাধারণ কাজ করে। তাছাড়া দুটি পাতা একসাথে চিবালে সৃষ্ট স্ক্লেরোসিস-এর ব্যথা প্রশমিত করতে সহায়তা করে। ১৯৪০ সাল থেকে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে গবেষকরা থানকুনি পাতার উপকারিতা নিয়ে গবেষণা করে আসছেন। এই পাতার স্যাপোনাইন (এটি ট্রাইপারনয়েডস নামেও পরিচিত) গ্রুপে সক্রিয় রয়েছে যার মধ্যে এশিয়াটিকোসাইড, ম্যাডেক্যাসোসাইড, ম্যাডেক্যাসিক অ্যাসিড এবং এশিয়াটিক অ্যাসিড বিদ্যমান। অ্যাক্টিভ এশিয়াটিকোসাইড কুষ্ঠ এবং যক্ষ্মা রোগের জন্য ব্যবহৃত হয়। নিচে থানকুনি পাতার উপকারিতা, ব্যবহার এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

সূচিপত্রঃ

থানকুনি পাতার ১০ টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

১) রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে

রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে

থানকুনি পাতা ধমনী এবং শিরাগুলোতে মাইক্রোসার্কুলেশন বৃদ্ধি করে, ধমনীর অভ্যন্তরীণ বর্মটিকে জড়িয়ে রাখে এবং শিরাগুলোর স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। এর ফলস্বরূপ, থানকুনি পাতা প্রায়শই মানব দেহের নীচের অঙ্গগুলোতে ধমনীর উচ্চ রক্তচাপ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়।

২) ক্ষত এবং দাগ নিরাময় করে

থানকুনি পাতার নিষ্কাশন কোষ বিভাগে জৈবিক প্রক্রিয়াগুলো উদ্দীপিত করতে এবং ক্ষত আরও দ্রুত নিরাময়ের জন্য সংযোজক টিস্যুগুলোকে পুনরায় জন্মাতে এবং নতুন ত্বক তৈরি করতে সক্ষম হয়। থানকুনি পাতা টাইপ ১ কোলাজেন উৎপাদন করে ক্ষত নিরাময়ে উদ্দীপনা জাগায়। তাছাড়া এই প্রতিকারগুলো ক্ষত সাড়াতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে এবং ফাইব্রোব্লাস্টগুলোর প্রজনন ঘটায়।

৩) কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রে সহায়তা করে

মানসিক চাপ কমাতে, একাগ্রতা বাড়ানোর ক্ষমতা এবং বৃদ্ধদের স্মৃতিশক্তি বাড়াতে থানকুনি পাতা উপকারী। থানকুনি পাতার নির্যাস অ্যালিজাইমার রোগীদের জন্য অলৌকিক কাজ করে যা এশিয়াটিকোসাইডের ডেরিভেটিভসের বিটা-অ্যামাইলয়েড বিষের ক্ষতির হাত থেকে নিউরাল কোষগুলোকে রক্ষা করতে সক্ষম।

৪) বাতের ব্যথা নিরাময় করে

বাতের ব্যথা নিরাময় করে

২০০৩ সালে সিডনি একটি ডকুমেন্টারি প্রকাশ করে সেখানে দেখা যায় যেসব অস্ট্রেলিয়ান রোগী প্রতিদিন দুটি করে থানকুনির নতুন পাতা খেয়েছিল তাদের বেশিরভাগই দ্রুত বাত রোগ নিরাময় হয়। আর্থ্রাইটিস এবং প্যারাডোস্যাকাল রোগের নিরাময়ে থানকুনি পাতা বেশ উপকারী। লেখক মিঃ রাশ মাসলেন ১৯৮৮ সালে ব্রান্সউইক ভ্যালির একজন কৃষকের কাছ থেকে বাতের প্রতিকার সম্পর্কে যখন জানতে পেরেছিলেন সেসময় তিনি এই অঞ্চলের প্রাকৃতিক রিজার্ভ পার্ক নির্মাণ ও পরিচালনা করছিলেন। মিঃ রুশ তার স্ত্রী বেরিলকে হাতের জয়েন্টে আর্থ্রাইটিস নিরাময়ে পুরোপুরি সহায়তা করেন। তিনি তার স্ত্রীকে বলেছিলেন “প্রতিদিন এক বা তিনটি পাতা নয় কেবল দুটি থানকুনি পাতা চিবিয়ে এবং গিলে খাবে। এতে নিরাময়ে কিছুটা সময় লাগে তবে আর্থ্রাইটিস সহজ হয়ে যাবে।”

৫) স্মরণশক্তি বাড়ায়

থানকুনির শুকনো পাতা গুঁড়ো করে পিষে প্রতিদিন ৩ থেকে ৫ গ্রাম দুধের সাথে খেলে এটি স্মরণশক্তি এবং দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। 

৬) হৃদরোগ থেকে মুক্তি দেয়

হৃদরোগ থেকে মুক্তি দেয়

এই পাতা ফোলাভাব কমায় এবং রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়ায়। তাছাড়া ভেরিস এবং ভেরোসিসের মতো শিরা সম্পর্কিত রোগগুলোতেও সহায়তা করে। ২০০১ সালে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা গেছে শিরার উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত যে রোগীরা ৪ সপ্তাহ ধরে থানকুনি পাতা ব্যবহার করেছিলেন তারা শেষ সপ্তাহে খেয়াল করেছিলেন তাদের পায়ের গোড়ালি ব্যথা এবং ক্লান্তিভাব অন্যান্য রোগীদের তুলনায় তুলনামূলকভাবে হ্রাস পেয়েছে। এছাড়া এই পাতার দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার স্থূলতা এবং এথেরোস্ক্লেরোসিস রোগে রক্তের কোলেস্টেরল কমায় এবং কম জটিলতা রয়েছে এমন শিরাগুলোকে নরম করে তোলে। 

৭) মানসিক চাপ কমায়

থানকুনি পাতার মধ্যে থাকা ট্রাইটারপেইনয়েড মানসিক চাপ কমায় এবং কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। ২০০০ সালে ক্লিনিক্যাল সাইকো ফার্মাকোলজি জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা নিয়মিত থানকুনি পাতা খায় তারা অন্যান্যদের থেকে কম মানসিক চাপে থাকে। তবে কিছু গবেষকরা এখনও থানকুনি পাতা মানসিক চাপের লক্ষণগুলোর উপর প্রভাব ফেলে কিনা তা নিয়ে ভিন্নমত পোষণ করেন।

৮) ক্ষত নিরাময় করে

থানকুনি পাতায় সক্রিয় ট্রাইটারপেইনয়েড ক্ষত নিরাময়ে দ্রুত কাজ করে। এটি ক্ষত নিরাময় কর‍তে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টকে উৎসাহ দেয় এবং চোটের ক্রিয়াকলাপ ও আঘাতপ্রাপ্ত জায়গায় রক্তের সরবরাহ বাড়িয়ে তুলতে সক্ষম হয়। ২০০৬ সালের গবেষকরা তাদের একটি গবেষণায় ইঁদুরের ক্ষত নিরাময়ে থানকুনি পাতার কার্যকারিতা পরীক্ষা করে। এই অনুসন্ধানে দেখা গেছে যে এই পাতার নির্যাস দিয়ে চিকিৎসা করা ক্ষত তুলনামূলকভাবে এই পাতা ছাড়া চিকিৎসার চেয়ে দ্রুত রোগ নিরাময় করে। যদিও মানুষের উপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা এখনও পুরোপুরি সম্পন্ন হয়নি, তবুও এই গবেষণার মাধ্যমে থানকুনি পাতা ক্ষত নিরাময়ে উপকারী তা পরিষ্কারভাবে বোঝা যায়। 

৯) ডিটক্সিফাই

থানকুনি পাতা গুঁড়ো করে দিনে দুইবার, সকালে এবং বিকেলে, ৩ গ্রাম পাউডার প্রেশ দুধের সাথে পান করুন। এটি রক্ত ডিটক্সিফাই করতে সহায়তা করে।  ঋতুস্রাব শেষ হওয়ার সাথে সাথে তিন দিন এটি একটানা গ্রহণ করুন। কারণ এটি ঋতুস্রাবের যন্ত্রণা নিরাময়েও যথেষ্ট উপকারী। থানকুনি পাতা দেহকে সতেজ ও তরুণ রাখতে, উজ্জল মসৃণ ত্বক বজায় রাখতে, রক্ত ​​সঞ্চালন বৃদ্ধি এবং বিভিন্ন রোগের সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে।

১০) প্রসাধনী

থানকুনি পাতা কেবল শীতল এবং পুষ্টিকরই নয়, সৌন্দর্য ধরে রাখার ক্ষেত্রেও উপকারী। থানকুনি পাতার রস ত্বকের শুকনো ভাব কমাতে সাহায্য করে, বয়সের ছাপ দূর করে, রক্ত ​​সঞ্চালন এবং স্মৃতিশক্তি উন্নত করতে পারে। তাছাড়া এটি ব্রণের জন্যও বেশ ভাল কাজ করে। 

থানকুনি পাতা খাওয়ার নিয়ম বা ব্যবহার

১) থানকুনি পাতার রস

থানকুনি পাতা ধুয়ে ফেলে পিষুন বা গুড়ো করে নিন। তারপরে এতে কিছুটা পানি যোগ করুন। এরপর নির্যাস বের করে নিন এবং বাকি অংশ ফেলে দিন। আর স্বাদ বাড়াতে চিনি যুক্ত করুন। প্রতিদিন একজন ব্যক্তি ৩০ থেকে ৪০ গ্রাম তাজা থানকুনি পাতা গ্রহণ করতে পারেন।

২) থানকুনি পাতার চা

থানকুনি পাতার চা

২০০ গ্রাম থানকুনি পাতা, ১০০ গ্রাম শুকনো অ্যাডেনোসমা কর্ডিফোলিয়াম, মিং আরালিয়া পাতা ২০০ গ্রাম এবং লিকারিস ১০০ গ্রাম শুকনো ভেষজ নিয়ে গুড়ো করুন এবং আর্দ্রতা এড়াতে একটি পাত্রে সংরক্ষণ করুন। দিনে ৩০ থেকে ৪০ গ্রাম পান করুন। ফুটন্ত পানিতে গুঁড়ো রেখে ১০ মিনিট পর পরিবেশন করুন। শরীরকে ঠান্ডা রাখতে, লিভারকে শক্তিশালী করতে এবং তৃষ্ণা নিবারণে সহায়তা করে এই চা।

৩) গরমে ফুসকুড়ি নিরাময়ের জন্য

50 গ্রাম থানকুনি পাতা ধুয়ে ফেলে নির্যাস বের করুন এবং এক চিমটি চিনি বা লবণ যোগ করে সহজেই এটি খেয়ে নিন।

৪) ক্রোমিয়াম নিরাময়ের জন্য

৪০ গ্রাম থানকুনি পাতা ও ৪০ গ্রাম বাঁশের পাতার সাথে এক চিমটি লবণ নিয়ে গুঁড়ো করে পানিতে মিশিয়ে পান করার জন্য ছেঁকে নিন এবং পান করুন।

৫) জ্বর নিরাময়ের জন্য

৩০ গ্রাম টাটকা থানকুনি পাতা ধুয়ে গুড়ো করে ফোটানো ঠান্ডা পানি যোগ করুন এবং ১০ গ্রাম ক্যাসাভা মাড়ের সাথে মেশানোর পরে নির্যাস বের করে নিন। এরপর চিনি যোগ করুন এবং পরিবেশন করুন।

৬) ব্রণ নিরাময়ের জন্য

৫০ গ্রাম থানকুনি পাতা এবং ৫০ গ্রাম মচমচে তেতো করলা পাতা ধুয়ে নিয়ে এক চিমটি লবণের সাথে মিশ্রণ করুন এরপর আপনার যেখানে ব্রণ হয়ছে সেখানে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং পাতলা কাপড় দিয়ে মুড়ে নিন। ব্রণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত দিনে দুবার কাপড়টি পরিবর্তন করুন।

৭) উচ্চ রক্তচাপ হ্রাসের জন্য

১৬ গ্রাম থানকুনি পাতা, ১২ গ্রাম জুঁইয়ের পাতা, ১২ গ্রাম বাঁশের পাতা, ১৬ গ্রাম ভাল মরিদা, ১২ গ্রাম কোগন তৃণমূল, ১২ গ্রাম কাঁচা ঘাস ফুল, ১২ গ্রাম তুঁত পাতা নিয়ে নির্যাস তৈরি করে প্রতিদিন চা হিসেবে পান করুন।

৮) গলা ব্যথা এবং কাশি নিরাময়ের জন্য

থানকুনি পাতা ধোয়ার পরে গুড়ো করে ঘন নির্যাস বের করে নিন এবং এর সাথে সামান্য চিনি মেশান। বাচ্চাদের ক্ষেত্রে দিনে দুবার আধ-বাটি করে এবং বড়দের ক্ষেত্রে দিনে দু’বার এক বাটি করে খাওয়ান। এভাবে নিয়মিত ৫ থেকে ৭ দিন ব্যবহার করেন দেখবেন আপনার গলা ব্যাথা ও কাশি সেরে যাচ্ছে। 

থানকুনি পাতার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

১) মাথা ব্যথা

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা যায় ঠান্ডা হওয়ার জন্য থানকুনি পাতার রসের অতিরিক্ত ব্যবহার মাথা ব্যাথা এমনকি ক্ষুধার প্রতি অনীহাভাব জাগাতে পারে। সুতরাং, এটির মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার থেকে সচেতন থাকা জরুরী।

২) রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি

রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি

বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে থানকুনি পাতা রক্তের কোলেস্টেরল এবং চিনির মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। উচ্চ কোলেস্টেরল এবং রক্তে অধিক শর্করার মাত্রাযুক্ত ব্যক্তির অতিরিক্ত পরিমাণে থানকুনি পাতার রস খাওয়া এড়িয়ে যাওয়া উচিত।

৩) গর্ভবতী হওয়ার কম সুযোগ

যদিও থানকুনি পাতা মহিলাদের সৌন্দর্য বাড়াতে প্রভাব ফেলে তবে এই পাতার দীর্ঘ ব্যবহার গর্ভধারণের সম্ভাবনা হ্রাস করে। সুতরাং সন্তান নিতে চাইলে থানকুনি পাতার রস ব্যবহার সীমিত করুন।

৪) অন্যান্য ঔষুধের সাথে প্রভাব

থানকুনি পাতা গ্রহণের পাশাপাশি ঘুমের ওষুধ, অ্যান্টিকনভালসেন্টস, বার্বিটুয়েট্রেট, বেনজোডিয়াজেপাইন, সেডেটিভস এবং অন্যান্য এন্টিডিপ্রেসেন্টস নিলে বিরুপ প্রতিক্রিয়া ঘটতে পারে এবং এটি ইনসুলিন ও অন্যান্য ডায়াবেটিস ঔষুধের পাশাপাশি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণের ওষুধের প্রভাবও কমাতে পারে। তাছাড়া সর্দি, কাশি এবং গলা ব্যথার ওষুধ বা অ্যালকোহল গ্রহণের পাশাপাশি থানকুনি পাতা খেলে এটি উত্তেজনা বাড়ায়। 

৫) ডায়রিয়া

থানকুনি পাতাকে ঠান্ডা ঔষধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দুর্বল হজমপ্রক্রিয়ার লোকেরা যাদের সাধারণত পেঠ ফেঁপে উঠে বা ডায়রিয়া হয় তাদের সাবধানতার সাথে এটি গ্রহণ করা উচিত। এই ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি পাতা ব্যবহার করুন বা কাঁচা আদার টুকরার সাথে পরিবেশন করুন।

সতর্কতা: থানকুনি পাতা সঠিক ব্যবহারের জন্য কিছু টিপস

থানকুনি পাতা কেবল একটি উদ্ভিদই নয়, এটি একটি ভেষজ ঔষধিও। তবে এটি ঔষধ হিসেবে ব্যাবহার করার পূর্বে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া গুলো ভালভাবে জেনে নিয়ে সাবধানতার সাথে ব্যবহার করা উচিৎ।

  • একজন ব্যক্তি নিয়মিত গড়ে ৪০ গ্রাম থানকুনি পাতা গ্রহণ করতে পারে। তবে প্রতিটি ডোজ ব্যবহারের পর পরবর্তী ডোজ শুরু করতে কমপক্ষে অর্ধমাস খাওয়া বন্ধ করুন।
  • গর্ভবতী মহিলা, ডায়াবেটিস, যকৃতের অসুস্থতা বা দীর্ঘদিন ধরে চর্মরোগের ইতিহাস, ক্যান্সার বা অন্য কোনো ধরণের ঔষধ সেবনকারীদের অপ্রত্যাশিত পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এড়াতে থানকুনি পাতা ব্যবহার থেকে বিরত থাকা উচিত।
  • থানকুনি পাতা সাধারণত নিষ্কাশনের জন্য কাঁচা বা এররস চিপে নিয়ে পরিবেশন করা হয়। তবে সংক্রামক ঝুঁকি এড়াতে পানিতে ভালোভাবে ধুয়ে সাবধানে এটি ব্যবহার করুন।

তাছাড়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের মেডিকেল একাডেমিরা সম্প্রতি এই ভেষজ ঔষধি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, থানকুনি পাতা ব্যবহার করা নিরাপদ, তবে রোগীদের চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ছয় সপ্তাহের বেশি সেবন করা উচিত নয়। এছাড়াও, যকৃতের রোগ, ডার্মাটোলজিক জখম থাকা বা ক্যান্সারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের থানকুনি পাতা গ্রহণ করা উচিত নয়। থানকুনি পাতার রস  বেশি পরিমানে খেলে মাথা ঘুরতে পারে। তবে অনেকেই গুজব রটায় যে খুব বেশি থানকুনি পাতার রস খেলে রক্তপাত হতে পারে। আসলে, এটি আমাদের রক্তপাতের চেয়ে মাথা ঘোরার ঝুঁকির সম্ভাবনা বেশি বাড়িয়ে দেয়।

শেষ কথা

সবশেষে, আমাদের মাথায় রাখতে হবে এটি অবশ্যই সাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী একটি ভেষজ ঔষধী। এটি বহুক্ষেত্রে আমাদের শরীরের নানা রোগের প্রতিকারক হিসেবে কাজ করে। কিন্তু দিনশেষে এটি ব্যবহার এবং খাওয়ার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা উচিত। আশা করা যায়, এই লেখা থেকে আপনারা থানকুনি পাতার ব্যবহার, খাওয়ার নিয়ম এবং সাস্থ্য উপকারিতা বিষয়ে কিছুটা ধারণা পাবেন। সর্বোপরি, ভালো খান, সুস্থ থাকুন।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button