বিকাশমোবাইল ব্যাংকিং

বিকাশে বিল পে করুন ঘরে বসেই

একটা সময় ছিল যখন কোনো সরকারি বিল দিতে হলেই লম্বা লাইনের ঘোর প্যাঁচে পড়ে জীবন হত ওষ্ঠাগত। কিন্তু দিন বদলেছে, এখন বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি অথবা অন্যান্য বিল দিতে প্রয়োজন নেই লাইনে দাঁড়ানোর। জনগণের সেই নিদারুণ দুর্ভোগ দূর করেছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গুলো। যার মধ্যে অন্যতম হল বিকাশ। বিকাশের সাহায্যে ঘরে বসেই আপনি দিতে পারবেন প্রায় সকল বিল। ফলে বাঁচবে সময় ও কমবে পরিশ্রম। কিন্তু বিল দেওয়ার কাজটি নির্ভুল ভাবে না করলে পড়তে হতে পারে নানা ভোগান্তিতে। সেই ভোগান্তি প্রতিহত করতেই আজকে লেখায় থাকছে বিকাশের সাহায্যে বিল পে করার বিস্তারিত নিয়ম।

সূচিপত্রঃ

বিকাশে যেসকল বিল পরিশোধ করতে পারবেন

বিকাশের সাহায্যে মোট ১০ ধরনের বিল দেওয়া যায়। এগুলো হলঃ

১) বিদ্যুৎ বিল

২) পানির বিল

৩) পল্লি বিদ্যুৎ বিল

৪) ইন্টারনেট বিল

৫) গ্যাস বিল 

৬) টেলিফোন বিল

৭) কেবল টিভি’র বিল

৮) শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফি

৯) ক্রেডিট কার্ড বিল

১০) সরকারি ফি

এছাড়াও বিকাশের সাহায্যে সিটি কর্পোরেশন, এন.জি.ও সহ অন্যান্য আরও বিভিন্ন বিল দেওয়া যায়। তবে আজকের লেখাতে আমরা বিকাশে বিদ্যুৎ বিল, বিকাশে পানির বিল, বিকাশে পল্লি বিদ্যুৎ বিল এবং বিকাশে ইন্টারনেট বিল প্রদানের  নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করব।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম

বিকাশ এর মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ যেই বিলটি পরিশোধ করে থাকে তা হল বিদ্যুৎ বিল। বিকাশ অ্যাপের সাহায্যে চাইলেই আপনি ডেসকো (DESCO), নেসকো (NESCO), ডিপিডিসি (DPDC), ডিপিডিবি (DPDB) ও ওয়েস্টজোন (WESTZONE) ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে পারবেন। এখানে উদাহরণস্বরুপ ডেসকো (DESCO) এর বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের উপায় ধাপে ধাপে দেখানো হয়েছে।

ধাপঃ ১

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে প্রথমেই প্রয়োজন পরবে একটি সচল একাউন্ট, যদি একাউন্ট না থাকে তাহলে ঘরে বসেই বিকাশ একাউন্ট খুলে নিন। এরপর আপনার বিকাশ একাউন্টে লগ ইন করুন। লগ ইন করার পর নিচের চিত্রের ন্যায় বিকাশ অ্যাপের হোম স্ক্রিন দেখতে পাবেন।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১

ধাপঃ ২

এই হোম স্ক্রিন থেকে ‘পে বিল’ অপশনটিতে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ২

ধাপঃ ৩

‘পে বিল’ এ ট্যাপ করার পর ‘পে বিল’ মেনুতে চলে যাবেন। সেখান থেকে ‘বিদ্যুৎ’ অপশনটিতে ট্যাপ করুন।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৩

ধাপঃ ৪

উপরের চিত্রের ন্যায় বিদ্যুৎ অপশন নির্ধারিত হলে নিচে ‘সব প্রতিষ্ঠান’ অংশে সকল বিদ্যুৎ কোম্পানির নাম দেখাবে। এবার আপনার রশিদটি দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক। রশিদের উপরের অংশেই প্রতিষ্ঠানের নাম স্পষ্ট ভাবে উল্লেখিত থাকবে।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৪

ধাপঃ ৫

আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক তা নিশ্চিত হলে মেনু থেকে সেই প্রতিষ্ঠানের নামের ওপর ট্যাপ করুন। আপনি যদি অগ্রিম বিল পরিশোধ করে বিদ্যুৎ ব্যবহার করেন তবে আপনি প্রিপেইড (Prepaid) গ্রাহক। যদি ব্যবহারের পর বিল পরিশোধ করেন তবে আপনি পোস্টপেইড (Postpaid) গ্রাহক। কোম্পানির নাম নির্ধারণের সময় তার পাশে প্রিপেইড ও পোস্টপেইড লেখা থাকবে। আপনি যেই ধরনের গ্রাহক সেই ধরনটি নির্ধারণ করুন। এক্ষেত্রে আমরা পোস্টপেইডের সাহায্যে উদাহরণ দিয়েছি। 

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৫

ধাপঃ ৬

প্রতিষ্ঠান নির্ধারণ করার পরে নিম্নের চিত্রের ন্যায় একটি দৃশ্য দেখতে পাবেন।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৬

ধাপঃ ৭

এখান থেকে ‘বিলের মাস’ অপশনে ট্যাপ করলে নিচের চিত্রের ন্যায় একটি ড্রপ ডাউন মেনু পাবেন। সেখান থেকে যেই মাসের বিল দেবেন তা নির্ধারণ করুন।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৭

ধাপঃ ৮

কোন মাসের বিল দেবেন তা নির্ধারণের পর পাশের ‘স্যাম্পল’ অপশনে ট্যাপ করলে একটি রশিদের ছবি ভেসে উঠবে। সেখান থেকে আপনি আপনার রশিদের ঠিক কোন অংশে  ‘একাউন্ট নাম্বার’ রয়েছে পরিষ্কার ভাবে বুঝতে পারবেন।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৮

ধাপঃ ৯

আপনার রশিদ দেখে একাউন্ট নাম্বারটি সাবধানতার সাথে পূরণ করুন। মনে রাখবেন, একাউন্ট নাম্বার ভুল করলে বিল পরিশোধ হবে না।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৯

ধাপঃ ১০

একাউন্ট নাম্বার পূরণের পরে ‘ভবিষ্যৎ বিল পেমেন্টের জন্য একাউন্টটি সেভ করে রাখুন’ এই অপশনে ট্যাপ করতে পারেন। এতে করে পরবর্তীতে ‘পে বিল’ মেনুতে গেলে সহজেই আপনি ডেসকোর একাউন্টটি খুজে পাবেন। ফলে বিল প্রদান আরো সহজ হবে। এছাড়াও একাউন্টটি সেভ করার সময় একটি রেফারেন্স নাম দিতে হবে। রেফারেন্স নাম এমন কিছু দেবেন যাতে করে সহজেই বুঝতে পারেন। যেমন ‘বিদ্যুৎ বিল’। সব কিছু পূরণ করা হলে এবার স্ক্রিনের নিচের অংশে ‘পে বিল করতে এগিয়ে যান’ অপশনে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১০

ধাপঃ ১১

‘পে বিল করতে এগিয়ে যান’ অপশনে ট্যাপ করার পরেই উপরের চিত্রের মতো  একটি দৃশ্য দেখতে পাবেন। সেখান থেকে আপনার বিল প্রদানের সমস্ত তথ্যাবলী আরো একবার যাচাই করে নিন। সব কিছু ঠিক থাকলে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে চলে যান।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১১

ধাপঃ ১২

এবার আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন প্রদানের পালা। সাবধানতার সাথে পিনটি প্রবেশ করান। পিন প্রবেশের করানোর পরে নিচের মতো একটি দৃশ্য দেখবেন। 

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১২

ধাপঃ ১৩

পেমেন্ট নিশ্চিত করতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনার বিল পরিশোধ সফল হবে।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৩

ধাপঃ ১৪

আপনার ‘পে বিল’ সফল হয়েছে। অর্থাৎ আপনি সফল ভাবে বিকাশের সাহায্যে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেছেন। তবে বিল যে পরিশোধ করেছেন তার একটি প্রমাণ রাখা জরুরী। প্রমাণ পেতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে যান।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৪

ধাপঃ ১৫

‘বিল রিসিট বুঝে নিন’ শিরোনামের পেজটি থেকে ‘রিসিট ডাউনলোড করুন’ অপশনে ট্যাপ করলেই আপনার রিসিটটি পিডিএফ (PDF) ফরম্যাটে ডাউনলোড হয়ে যাবে। আপনার ফোনে যদি ডিফল্ট ব্রাউজার (Default Browser) নির্ধারিত থাকে তবে তা স্বয়ংক্রিয় ভাবেই ডাউনলোড হবে। তবে ডিফল্ট ব্রাউজার নির্ধারিত না থাকলে তাৎক্ষণিক ভাবে কোন ব্রাউজার এর সাহায্যে রিসিট ডাউনলোড করতে চান তা ঠিক করে দিন। রিসিটটি দেখতে নিচের চিত্রের মতো হবে।

বিকাশে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৫অতঃপর আপনি বিকাশের সাহায্যে বিদ্যুৎ বিল দিতে ও তার প্রমাণ সংগ্রহ করতে সফল হয়েছেন। ঠিক এভাবেই ঘরে বসে ঝামেলাহীন ভাবে দিতে পারবেন পানির বিল, গ্যাস বিল, পল্লী বিদ্যুৎ বিল ও ইন্টারনেট বিল। 

এবার ধাপে ধাপে দেখে নেয়া যাক বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত।

বিকাশে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম

দৈনন্দিন জীবনে বিদ্যুৎ যেমন জরুরী ঠিক তেমনই জরুরী হল পানি। আর ঠিক বিদ্যুৎ এর মতই পানির বিল দিতেও আগে পোহাতে হত নানা ঝক্কি ঝামেলা। কিন্তু বর্তমানে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের মতই সহজে পরিশোধ করতে পারবেন পানির বিল। চলুন ধাপে ধাপে জেনে যাক কিভাবে বিকাশে পানির বিল পরিশোধ করবেন।

ধাপঃ ১

প্রথমেই স্বাভাবিক ভাবে আপনার বিকাশ একাউন্টে লগ ইন করুন। লগ ইনের পর বিকাশ হোম স্ক্রিন দেখতে পাবেন। সেখান থেকে ‘পে বিল’ এ ট্যাপ করুন।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১

ধাপঃ ২

পে বিল এ ট্যাপ করার পর ‘পে বিল’ মেনু খুলে গেলে ‘পানি’ নির্ধারণ করুন। অতঃপর নিচের ‘সব প্রতিষ্ঠান’ অংশে বিকাশে অর্ন্তভুক্ত দেশের সকল পানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের নাম দেখাবে।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ২

ধাপঃ ৩

নিজের রশিদ দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৩

ধাপঃ ৪

নিশ্চিত হলে ‘সব প্রতিষ্ঠান’ অংশ থেকে আপনি যেই প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক তা নির্ধারণ করুন। আমরা ঢাকা ওয়াসা (Dhaka WASA) উদাহরণস্বরুপ ব্যবহার করেছি। প্রতিষ্ঠান নির্ধারণ করার পর নিচের চিত্রের মতো একটি স্ক্রিন দেখা দেবে। 

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৪

ধাপঃ ৫

এই স্ক্রিনটির ‘বিলের মাস’ নামক অপশনে ট্যাপ করলে একটি ড্রপ ডাউন মেনু খুলে যাবে। সেখান থেকে কোন মাসের বিল দেবেন তা নির্ধারণ করুন। বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৫

ধাপঃ ৬

বিলের মাস নির্ধারণের পরে ‘স্যাম্পল’ অপশনে ট্যাপ করলেই একটি নমুনা রশিদ দেখতে পাবেন। সেখানে বিল নাম্বার রশিদের কোন অংশে থাকে তা চিহ্নিত করে দেওয়া রয়েছে। নমুনাটি নিচের চিত্রের মতোঃ

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৬

ধাপঃ ৭

রশিদ থেকে বিল নাম্বার দেখে নিয়ে ‘পে বিল’ পেজের ‘বিল নাম্বার দিন’ অংশ পূরণ করুন। এই অংশটি পূরণ হলে পরবর্তীতে সুবিধার জন্য একাউন্টটি সেভ করে রাখতে পারেন। এক্ষেত্রে রেফারেন্স নাম হিসেবে দিতে পারেন ‘পানির বিল’ অথবা আপনার মন মতো যেকোনো কিছু।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৭

ধাপঃ ৮

বিলের মাস নির্ধারণ ও বিল নাম্বার পূরণ শেষ হলে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে যান। পরের ধাপটি নিচের চিত্রের মতো।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৮

ধাপঃ ৯

এই ধাপে বিলের সমস্ত তথ্য ভাল ভাবে দেখে নিন। সকল তথ্য ঠিক থাকলে পরের ধাপে যেতে ট্যাপ করুন। 

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৯

ধাপঃ ১০

এই ধাপে আপনার পিন প্রবেশ করাতে হবে। সঠিক ভাবে পিন প্রবেশ করালেই পরবর্তী ধাপে যেতে পারবেন।

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১০

ধাপঃ ১১

পিন প্রদানের পরেও সর্বশেষ একবার পে বিল নিশ্চিত করতে হবে। পে বিল নিশ্চিত করতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। বারটি পূরণ হয়ে গেলে পে বিল নিশ্চিত হবে এবং কিছুক্ষণের মধ্যেই বিল পরিশোধিত হবে। 

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১১

ধাপঃ ১২

বিল পরিশোধ সফল হলে আপনি উপরের চিত্রের মতো একটি দৃশ্য দেখতে পাবেন। এখানে আপনি কোন সময়ে বিল পরিশোধ করেছেন, বিলের ট্রানজেকশন আইডি, কত বিল পরিশোধ করলেন, নতুন ব্যালেন্স কত ও বিল নাম্বার কত এ সমস্ত তথ্য দেখতে পারবেন। অতঃপর বিল পরিশোধের প্রমাণ নিতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করুন। 

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১২

ধাপঃ ১৩

বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের মতই পানির বিল পরিশোধ করলেও তার রিসিট সংগ্রহ করতে হয়। রিসিট সংগ্রহ করতে ‘রিসিট ডাউনলোড করুন’ অপশনে ট্যাপ করুন। অতঃপর বিলটি ডাউনলোড হয়ে যাবে। পিডিএফ ফরম্যাটের বিলটি দেখতে হবে নিচের চিত্রটির মতোঃ

বিকাশ এর মাধ্যমে পানির বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৪

ব্যাস! হয়ে গেল বিকাশের সাহায্যে পানির বিল পরিশোধ। 

বিকাশে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম

বিদ্যুৎ ও পানির মতই গ্যাস ও একটি ইউটিলিটি সার্ভিস। বর্তমানে অনেক বাসাতেই নতুন গ্যাস সংযোগ দেওয়া হচ্ছে না। তাই সিলিন্ডার গ্যাস কিনে রান্নার ঝামেলা পোহাতে না চাইলে গ্যাস বিলটা দেওয়া চাই নিয়মিত। বিকাশের সাহায্যে গ্যাস বিল দিতে চাইলে প্রথমেই লগ ইন করুন আপনার বিকাশ অ্যাপে। 

ধাপঃ ১

বিকাশ অ্যাপে লগ ইন করার পরে হোম স্ক্রিন থেকে গতানুগতিক ভাবে ট্যাপ করুন ‘পে বিল’ অপশনে। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১

ধাপঃ ২

‘পে বিল’ অপশনে ট্যাপ করার পরেই নিচের স্ক্রিনটি ভেসে উঠবে।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ২

ধাপঃ ৩

‘পে বিল’ মেনু থেকে ‘গ্যাস’ অপশনে ট্যাপ করুন। ফলে আপনি যে গ্যাস বিল দেবেন তা নির্ধারিত হবে। তবে বিল পরিশোধের আগে অবশ্যই নিশ্চিত হয়ে নেওয়া উচিত যে আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের সেবা গ্রহণ করেন। আমরা লেখাতে উদাহরণস্বরুপ ‘জালালাবাদ গ্যাস’কে ব্যবহার করেছি। আপনার হাতে থাকা রশিদ দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনি কোন প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৩

ধাপঃ ৪

কোন প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক তা নিশ্চিত হওয়ার পরে ‘পে বিল’ মেনুর নিচের দিকে ‘সব প্রতিষ্ঠান’ অংশ থেকে খুজে নিন আপনার কাঙ্খিত প্রতিষ্ঠানের নামটি।বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৪

ধাপঃ ৫

কাঙ্খিত প্রতিষ্ঠানের নামের ওপর ট্যাপ করার পর পরই নিচের স্ক্রিনটি দেখতে পাবেন। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৫

ধাপঃ ৬

এই স্ক্রিনের ‘বিলের মাস’ অপশনে ট্যাপ করে নির্ধারণ করে নিন আপনি কোন মাসের বিল পরিশোধ করতে চান।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৬

ধাপঃ ৭

বিলের মাস নির্ধারণ করলে এবার গ্রাহক সংকেত প্রবেশের পালা। গ্রাহক সংকেতটি আপনার রশিদেই স্পষ্ট ভাবে দেওয়া থাকে। তবে সংকেতটি রশিদের কোথায় আছে তা খুঁজে না পেলে ‘স্যাম্পল’ বাটনে ট্যাপ করুন। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৭

ধাপঃ ৮ 

স্যাম্পল রশিদটি দেখলেই বুঝতে পারবেন আপনার রশিদের কোন অংশে গ্রাহক সংকেতটি রয়েছে। এবার আপনার গ্রাহক সংকেতটি বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করান। এছাড়াও আগামীতে আরও সহজে বিল দিতে ট্যাপ করে রাখুন সেভ অপশনে। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৮

ধাপঃ ৯

একাউন্টটি সেভ বা সংরক্ষণ করে রাখার সময় এটিকে একটি নাম দিতে হবে। সহজ ‘গ্যাস বিল’ নামটিই এক্ষেত্রে মানানসই। অতঃপর স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে যান।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৯

ধাপঃ ১০

গ্যাস বিল প্রদানের সকল তথ্য একবার ভাল ভাবে যাচাই করে নিন। কোন ভুল না থাকলে নিচের অংশে আবারো ট্যাপ করে পরের ধাপে যান।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১০

ধাপঃ ১১

নিরাপত্তার স্বার্থে আবারো আপনার পিন নাম্বারটি প্রবেশ করান। এবার পে বিল নিশ্চিত করার পালা। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১১

ধাপঃ ১২

বিল পরিশোধ নিশ্চিত করতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। বারটি পূর্ণ হয়ে গেলেই পে বিল নিশ্চিত হয়ে যাবে।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১২

ধাপঃ ১৩

বিল পরিশোধ নিশ্চিত করার পর যদি উপরের ন্যায় একটি স্ক্রিন ভেসে ওঠে তবে আপনার বিল পরিশোধ সফল হয়েছে। তবে শুধু ট্রানজেকশন আইডিকেই প্রমাণ হিসেবে মনে করলে চলবে না। পে বিল সেকশনের জন্য রয়েছে আলাদা রিসিট নামানোর ব্যবস্থা। রিসিট নামাতে পরবর্তী ধাপে যান। 

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৩

ধাপঃ ১৪

এই স্ক্রিনের ‘রিসিট ডাউনলোড করুন’ বাটন ট্যাপ করলেই আপনার রিসিট পিডিএফ আকারে ডাউনলোড হয়ে যাবে যা দেখতে নিচের চিত্রটির মতো হবে।

বিকাশ এর মাধ্যমে গ্যাস বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৪

হয়ে গেলো বিকাশে গ্যাস বিল পরিশোধ। চলুন এবার ধাপে ধাপে জেনে নেওয়া যাক কিভাবে বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়া যায়।

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম

বিকাশের সাহায্যে ইতোমধ্যে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম আমরা জেনেছি। কিন্তু ডেসকো নেসকো ইত্যাদি প্রতিষ্ঠান বাদেও বাংলাদেশের বিশাল সংখ্যক মানুষ পল্লী বিদ্যুৎ এর আওতাধীন। তাই এই লেখাতে বিকাশের সাহায্যে পল্লী বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের নিয়মও অর্ন্তভুক্ত করা হল। 

ধাপঃ ১

স্বাভাবিক ভাবে বিকাশ অ্যাপে লগইন করুন। এরপর ‘পে বিল’ অপশনে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১

ধাপঃ ২

‘পে বিল’ অপশনে ট্যাপ করলে ‘পে বিল’ মেনুতে পৌছে যাবেন। সেখানে ‘বিদ্যুৎ’ অপশনে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ২

ধাপঃ ৩

এবার নিজের কার্ডটি দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন আপনি পল্লি বিদ্যুৎ এর গ্রাহক কিনা। হলে প্রিপেইড গ্রাহক নাকি পোস্ট পেইড। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৩

ধাপঃ ৪

নিশ্চিত হওয়ার পরে ‘সব প্রতিষ্ঠান’ অংশ থেকে ‘Palli Bidyut’ অপশনে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৪

ধাপঃ ৫

ট্যাপ করার পরে আপনাকে মিটার নাম্বার ও আপনার কন্ট্যাক্ট নাম্বার অর্থাৎ মোবাইল নাম্বার দিতে হবে।

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৫

ধাপঃ ৬

আপনার মিটার নাম্বার কার্ডের কোন অংশে রয়েছে তা নিশ্চিত হতে ‘স্যাম্পল’ অপশনে ট্যাপ করতে পারেন। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৬

ধাপঃ ৭

বারকোডের নিচের নাম্বারটিই আপনার মিটার নাম্বার। অতঃপর এটি বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করান। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৭

ধাপঃ ৮

মিটার নাম্বারটি প্রবেশের সাথে সাথে আপনার ফোন নাম্বারটিও প্রবেশ করাতে হবে। এছাড়াও ভবিষ্যতে একই একাউন্টে বিল দিতে চাইলে একাউন্টটি সেভ করে রাখুন। এ ধাপের সকল কাজ শেষ হলে পরের ধাপে যান। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৮

ধাপঃ ৯

এই অংশে আপনি কতটাকা মিটারে জমা করতে চান তা নির্ধারণ করুন। বাম পাশের ৫০০, ১০০, ১২০০, ১৫০০ ইত্যাদি বহুল ব্যবহৃত পরিমাণ। তবে আপনি চাইলেই নিজের সুবিধা মতো টাকা জমা করতে পারবেন (নূন্যতম ৫০০ টাকা)। টাকার অঙ্ক নির্ধারণের পরে নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে যান।

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৯

ধাপঃ ১০

এই ধাপে আপনি কত টাকা মিটার জমা করবেন তার পরিমাণ, আপনার মিটার নাম্বার ও আপনার একাউন্টের নাম দেখতে পারবেন। মোবাইল নাম্বারের সাথে যেই একাউন্ট সংযুক্ত এখানে সেই একাউন্টেরই নাম আসবে। এছাড়াও নিচে বিদ্যুৎ বিল, চার্জ, মিটার ভাড়া ও ভ্যাটের পরিমাণ উল্লেখ করা থাকবে। সব কিছু ঠিক থাকলে পরের ধাপে যেতে ট্যাপ করুন। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১০

ধাপঃ ১১

একাউন্টটি আপনিই ব্যবহার করছেন তা নিশ্চিত করতে আপনার পিনটি আবার প্রবেশ করান। পিনটি সঠিক ভাবে না দিলে আপনি কোন ভাবেই বিল পরিশোধ সম্পন্ন করতে পারবেন না। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১১

 ধাপঃ ১২

শেষবারের মত পে বিল নিশ্চিত করতে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। নিশ্চিত করার এক মিনিটের মধ্যেই পে বিল সফল হয়েছে এমন বার্তা আসার কথা। 

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১২

ধাপঃ ১৩

এই বার্তার অর্থ আপনি ইতোমধ্যে আপনার মিটারে টাকা জমা করেছেন। তবে জমা করেছেন এই প্রমাণ রাখতে পরের ধাপে যান।

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৩

 

ধাপঃ ১৪

এই ধাপের ‘রিসিট ডাউনলোড করুন’ অপশনে ট্যাপ করলেই রিসিটটি ডাউনলোড হয়ে যাবে যা দেখতে হবে নিচের চিত্রটির মতো।

বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১৪

হয়ে গেলো বিকাশে পল্লী বিদ্যুৎ বিল প্রদান। তবে চলুন, এবার ধাপে ধাপে দেখে নেওয়া যাক কিভাব বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়া যায়।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম 

ইন্টারনেট ছাড়া যেন জীবন অচল। উপরে উল্লিখিত বাকি সবকটি বিল এর মতই ইন্টারনেট বিলও দিতে পারবেন বিকাশের সাহায্যে। ফলে প্রতি মাসে আপনার দোড়গড়ায় বিলের জন্য কড়া নাড়ার অবকাশ থাকবে না কারো। বিকাশের সাহায্যে ইন্টারনেট বিল দিতে প্রথমে লগ ইন করুন বিকাশ অ্যাপে। 

ধাপঃ ১

বিকাশ অ্যাপের হোম স্ক্রিনে থেকে ‘পে বিল’ অপশনে ট্যাপ করলেই চলে যাবেন পে বিল মেনুতে। সেখানে ‘ইন্টারনেট’ অপশনে ট্যাপ করুন।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ১

ধাপঃ ২

ইন্টারনেট অপশনে ট্যাপ করার পর পেজের নিচের অংশে সব প্রতিষ্ঠান এর নাম দেখাবে। অসংখ্য প্রতিষ্ঠান থাকায় স্ক্রিনের উপরের দিকে ‘প্রাপক’ অংশে আপনার ইন্টারনেট সেবা দাতা প্রতিষ্ঠানের নাম লিখুন। নামটি পেলে তাতে ট্যাপ করুন।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ২

ধাপঃ ৩

কোন মাসের বিল দেবেন তা নির্ধারণ করতে ‘বিল সময়সীমা’ অংশে ট্যাপ করুন। এরপর সেখান থেকে বিল প্রদানের মাস নির্ধারণ করুন।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৩

ধাপঃ ৪

বিল প্রদানের মাস ও ‘কাস্টমার আইডি’ প্রবেশ করানোর পর কিছু প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে আপনার যোগাযোগের নাম্বারও প্রবেশ করাতে হয়। যদি সেই অপশন থাকে তবে তা পূরণ করে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে পরের ধাপে চলে যান। পরের ধাপে টাকার অংক নির্ধারণ করে স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করলেই লেনদেনের বিস্তারিত দেখতে পাবেন।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৪

ধাপঃ ৫

লেনদেনের সকল বিস্তারিত ঠিক থাকলে পরের ধাপে চলে।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৫ 

ধাপঃ ৬

এই ধাপে আপনার পিনটি প্রবেশ করান। পিনটি ঠিক ভাবে প্রবেশ করিয়ে অ্যারো বাটনে ট্যাপ করলে পরের ধাপটি আসবে।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৬

ধাপঃ ৭

স্ক্রিনের নিচের অংশে ট্যাপ করে ধরে রাখলেই সম্পন্ন হয়ে যাবে পে বিল।

বিকাশে ইন্টারনেট বিল দেওয়ার নিয়ম ধাপঃ ৭

শেষকথা 

যতই দিন যাচ্ছে ততই মোবাইল ব্যাংকিং আমাদের জীবনে আরো গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে নিচ্ছে। হয়তো এমন একটি সময় আসবে যখন এ পৃথিবী থেকে নগদ টাকার চল উঠেই যাবে। যদিও তা অদূর ভবিষ্যতে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবুও বর্তমানের জীবনকে আরো সহজ করতে সকলেরই উচিত অনলাইনে বিল প্রদানের অভ্যাস গড়ে তোলা। 

অনবরত জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

১) আমার একাউন্ট থেকে টাকা কেটে নিয়েছে কিন্তু বিল প্রদান হয় নি। কি করতে পারি?

উত্তরঃ উপযুক্ত প্রমাণ নিয়ে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করুন।

২) বিল প্রদানের পরে রিসিট ডাউনলোড না করলে কি কোন সমস্যা হয়?

উত্তরঃ কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু কোন সমস্যা হলে আপনি যে বিল দিয়েছেন তার প্রমাণস্বরুপ রিসিটটি ব্যবহার করতে পারবেন। তাই দয়া করে রিসিট সংরক্ষণ করুন। 

৩) বিকাশ থেকে কয়টা বিদ্যুৎ বিল দেওয়া যায়?

উত্তরঃ একজন গ্রাহক প্রতি মাসে সর্বোচ্চ ৫ বার বিদ্যুৎ বিল এবং পল্লী বিদ্যুৎ বিল বিকাশ করতে পারবেন।

 

ছবি ও তথ্যসূত্রঃ বিকাশ

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button