টেকনোলজিমোবাইল ফোনলাইফ স্টাইল

পুরোনো স্মার্টফোনের ১২টি স্মার্ট ব্যবহার যা অবশ্যই জানা দরকার

আজ থেকে মাত্র বছর দশক আগেও স্মার্টফোনের ব্যবহার এখনকার মতো চোখে পড়ার মতো ছিল না। একটি ফোনেই কারো কারো অনেক বছর চলে যেতো। কিন্তু গত কয়েকবছর ধরে আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তিগত দিক থেকে মানুষ ক্রমাগত এগিয়ে যাচ্ছে। আর তারই ফলশ্রুতিতে কোন নামকরা মোবাইল ব্র্যান্ডের আকর্ষণীয় এবং আরো উন্নত প্রযুক্তির ফোন মার্কেটে আসলেই আমাদের মনে ফোন কেনার ঝোঁক বেড়ে যায়। তখন পু্রোনো ফোনটি আর ভাল লাগে না। টাকা জমলেই আমরা কিনে ফেলি নতুন ফোন আর সাথে সাথেই অনেকসময় নিজেদের পুরোনো ফোনটিও অযত্নে, অবহেলায় পড়ে থাকে। তবে আপনি কিন্তু চাইলেই এই পুরোনো ফোনটি দিয়ে দারুণ দারুণ কিছু কাজ করতে পারেন।

তো আসুন জেনে নেই পুরোনো স্মার্টফোনটি দিয়ে কি কি দুর্দান্ত জিনিস সহজেই করতে পারবেন।

কিভাবে কাজে লাগাবেন আপনার পুরোনো মোবাইল ফোন?

১. নিরাপত্তা ক্যামেরা

আপনার কোনো অব্যবহৃত পুরাতন ফোন থাকলে তবে এটিকে বাড়ির সুরক্ষা ক্যামেরায় পরিণত করতে পারেন। আপনার পুরোনো এবং নতুন ডিভাইসে আলফ্রেডের মতো সুরক্ষা ক্যামেরা অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করুন, তারপরে আপনার যেখানে প্রয়োজন সেখানে পুরোনো ফোনটি স্থাপন করুন। আপনি গাড়ির জন্য স্যাকশন কাপ মাউন্টের মতো সাধারণ কিছু ডিভাইসটির পাওয়ার অ্যাক্সেস নিশ্চিত করে ব্যবহার করতে পারেন। এখন লগ ইন করতে এবং পুরোনো স্মার্টফোন থেকে ফিডটি দেখতে আপনার বর্তমান স্মার্টফোনটি ব্যবহার করতে পারেন।

২. বাচ্চাদের ক্যামেরা

মোবাইলের ক্যামেরা

বাচ্চাদের জন্য পুরোনো স্মার্টফোনটিকে একটি ক্যামেরায় পরিণত করুন। পিক্সেলপ্লে ক্যামেরা ডাউনলোড করুন। পিক্সেলপ্লে ব্যবহার করে আপনার শিশু সরাসরি ডিভাইসে ফটো নিতে এবং সম্পাদনা করতে পারবে। ক্যামেরাটি কাজ করার জন্য ওয়্যারলেস নেটওয়ার্কের প্রয়োজন নেই এবং যে কোনো চিত্র রি-ভর বা তারযুক্ত সংযোগের মাধ্যমে ট্রান্সফার করতে পারবেন।

ডিভাইসটি আইফোন ৪/৫/৬/৭ এক্স এবং গ্যালাক্সি এস ৪ এর মতো অনেক অ্যান্ড্রয়েড ফোনসহ বেশিরভাগ স্ট্যান্ডার্ড আকারের স্মার্টফোনে ফিট করে। তবে আইফোন প্লাস বা এক্সএল আকারের ফোনের সাথে কাজ করবে না। তবে আপনি অবশ্যই আপনার বাচ্চাকে ফোনটি দিতে পারেন এবং পিক্সেলপ্লে ছাড়াই স্ন্যাপ করতে দিতে পারেন, তবে তারও আগে ফোনটিতে কোনো কেস বা স্ক্রিন প্রটেক্টর যুক্ত করে নেবেন।

৩. গেমিং সিস্টেম

আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েডের জন্য বিভিন্ন ধরণের অসংখ্য মোবাইল গেম রয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রে কিছু কিছু গেইমে ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হয় না। আপনার কাছে পুরাতন কোনো স্মার্টফোন থাকলে ডেডিকেটেড গেমিং সিস্টেম তৈরি করে নিতে পারবেন।

৪. ভিডিও চ্যাট ডিভাইস

আপনি স্কাইপ, ফেইসবুক, ফেসটাইম বা অন্য কোনো ভিডিও চ্যাট প্ল্যাটফর্মে কথোপকথন করতে চাইলে আপনার পুরোনো স্মার্টফোনটি একটি ডেডিকেটেড ইন্টারফেস হিসাবে কাজে লাগাতে পারবেন। তবে অবশ্যই ভাল গতিসম্পন্ন ওয়াই-ফাই কভারেজ নিশ্চিত করে নেবেন। বাচ্চাদের তাদের বন্ধুদের কল করার জন্য আপনার ফোনের প্রয়োজন হবে না এবং আপনার স্মার্টফোন আসন্ন কল এবং অন্যান্য সতর্কতার জন্যও উন্মুক্ত থাকবে।

৫. ওয়্যারলেস ওয়েবক্যাম

যদি ডেস্কটপ কম্পিউটারের জন্য আপনার ওয়েবক্যাম না থাকে বা আপনার ল্যাপটপটি ফ্রিটজে থাকে তবে আপনি কোনো পুরোনো স্মার্টফোনে ওয়েবক্যাম নিয়ে যেতে পারেন। এর মতো ফ্রি সফটওয়্যার কম্পিউটারের জন্য একটি স্মার্টফোনকে একটি ওয়েবক্যামে রুপান্তর করতে দেয়।

৬. অ্যালার্মঘড়ি

মোবাইল এবং অ্যালার্মঘড়ি

ইকো শো ৫ এবং লেনোভো স্মার্ট ক্লকের মতো স্মার্ট ডিভাইস আপনাকে সময় পরিচালনা করতে সহায়তা করে তবে সবাইতো শোবার ঘরে মাইক্রোফোন চায় না। এর পরিবর্তে, আপনার পুরোনো স্মার্টফোনের বড় ডিসপ্লেটিকে একটি অ্যালার্ম ঘড়িতে পরিণত করে নিন।

কেবল ওয়াই-ফাইয়ের মাধ্যমে একটি অ্যালার্ম ক্লক অ্যাপ্লিকেশন প্লে স্টোর থেকে নামিয়ে নিন, এরপর আপনার ফোনটি একটি স্ট্যান্ডে রাখুন। তবে খেয়াল করে আপনার নড়াচড়ায় যেন কোন সমস্যা না হয় এমন স্থানে রাখবেন। আপনার যদি সকালে অ্যালার্ম বন্ধ করার অভ্যাস থাকে তাহলে মোবাইল বাজার সাথে সাথে আপনি বন্ধ করে আবারও কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নিতে পারবেন। তবে অ্যালার্ম ঘড়ির ক্ষেত্রে কিছুটা বিরক্তিভাব আসে।

৭. টিভি রিমোট

বেশিরভাগ মিডিয়া স্ট্রিমিং ডিভাই্সগুলোর নিজস্ব রিমোট কন্ট্রোল থাকে। তবে সেই রিমোটগুলো সাধারণত ছোট আকারের হয়। আপনার কোনও অ্যাপল টিভি, ফায়ার টিভি স্টিক বা রোকুর থাকলে এগুলোর রিমোট সহজেই হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রতিটি টিভি কোম্পানির নিজস্ব মোবাইল অ্যাপ রয়েছে, এটি আপনার পুরোনো ফোন ডিভাইসে গুগল প্লে স্টোর থেকে নামান, তারপর আপনার অ্যাকাউন্টটি লিঙ্ক করুন এবং আপনার ফোনটি রিমোট হিসেবে আরামসে ব্যবহার করুন।

৮. ই-বুক রিডার

ই-বুক রিডার

আপনার যদি বই বা কমিক পছন্দ হয় আর কোনও ই-রিডার কিনতে না চাইলে আপনার পুরোনো ফোনটি ব্যবহার করতে পারেন। আইওএস বা অ্যান্ড্রয়েডে অ্যামাজন কিন্ডল অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করুন এবং আপনার ক্রয়, প্রাইম রিডিং, এমনটি ফ্রি ই-বুকগুলো সিঙ্ক আপ করুন। আইওএস এ আপনাকে প্রথমে অ্যামাজন ওয়েবসাইটে ই-বই কিনতে হবে। যেহেতু অ্যামাজন অ্যাপলকে অ্যাপ-অ্যাপ্লিকেশন বইয়ের ৩০ শতাংশ ছাড় দিতে চায় না), তবে আপনি যখন আইওএস অ্যাপ্লিকেশনটিতে লগইন করেন এবং রিফ্রেশ করেন, তখন আপনার বই সেখানেই থাকবে এবং সেখান থেকে পড়তে পারবেন। অথবা অ্যাপল বইয়ের মাধ্যমে পড়ে নিন।

৯. অডিওবুক শুনুন

আপনার যদি অডিবল অ্যাকাউন্ট থাকে তাহলে অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এবং আপনার পছন্দসই বইটি শুনুন। আপনি যেখানেই যান আপনার পুরোনো ডিভাইসটি সঙ্গে রাখুন অথবা শোনার জন্য এটিকে ব্লুটুথ স্পিকারের সাথে সংযুক্ত করুন।

১০. মিউজিক স্ট্রিমিং

আপনি যদি কোনো মিউজিক-স্ট্রিমিং পরিষেবায় সাবস্ক্রাইব করেন তবে আপনার বাছাইকৃত গানে আপনার অ্যাক্সেস রয়েছে। চার্জিং স্ট্যান্ডে পুরোনো ডিভাইসটি সেট আপ করুন এবং কিছু ওয়্যারলেস ইয়ারবাডগুলোতে পপ করুন বা আপনার ফোনটি একটি ব্লুটুথ স্পিকারের সাথে সংযুক্ত করুন। তারপরে কিছু টিউন ক্র্যাঙ্ক করুন বা ঘর পরিষ্কার বা কোনও কাজ সম্পন্ন করার সময় পডকাস্ট চটপট শুনে নিতে পারবেন।

১১. আপনার পুরোনো ফোনটি বিজ্ঞানে অবদানে কাজে লাগান

যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার পুরোনো স্মার্টফোনটি চালু আছে, এটি সম্ভবত ৯০-এর দশকের শেষের দিকের ডেস্কটপের মতোই শক্তিশালী এবং সক্ষম। তাহলে, কেন এই অব্যবহৃত ডিভাইসটি বিজ্ঞানের কাজে দান করবেন না? নিজের অব্যবহৃত ডিভাইসটি যদি বিজ্ঞানের কাজে লাগে তাহলে তো দান করাটা মন্দ হয় না। অ্যান্ড্রয়েডের জন্য, আপনি BOINIC অ্যাপ্লিকেশন গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে পারেন। এ অ্যাপ্লিকেশনটি জনস্রোত বিজ্ঞানের জন্য আপনার ডিভাইসের অব্যবহৃত কম্পিউটিং পাওয়ারকে সুরক্ষিত করার জন্য বার্কলে বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করেছিল।
তাছাড়া, আপনি আইবিএমের ওয়ার্ল্ড কমিউনিটি গ্রিডের সাহায্যে স্বাস্থ্য এবং টেকসহ গবেষণার জন্য আপনার ফোনটি ডেডিকেটেড করতে পারেন ।

১২. জরুরী সেবা গ্রহণে ব্যবহার করুন

জরুরী সেবা

আপনার পুরোনো মোবাইল ফোনটি বাড়িতে ফেলে রাখার থেকে ফোনটিকে আপনি জরুরী সেবা গ্রহণের কাজে ব্যবহার করতে পারেন। ধরুন, আপনার বর্তমান ব্যবহৃত ফোনটি কোনো কারণে অকেজো হয়ে পড়ল, সেক্ষেত্রে আপনার অব্যবহৃত ফোনটি আপনার যেকোনো জরুরী কাজে লেগে যেতে পারে বিপদের বন্ধু হিসেবে। এছাড়াও আপনি ফোনটিকে জরুরী সেবা গ্রহণের কাজেও লাগাতে পারবেন। বাংলাদেশের সরকারি কিছু জরুরী সেবা প্রদানকারি নম্বর রয়েছে। যেমনঃ ৯৯৯, ৩৩৩ ইত্যাদি। যেকোনো ধরণের বিপদে বা কোন তথ্যের প্রয়োজন হলে অতি দ্রুত সমাধান পেতে পারেন। আর এক্ষেত্রেও আপনার পুরোনো ফোনটি ব্যবহার করতে পারেন।

শেষ কথা

আপনার পুরাতন প্রিয় ডিভাইসটি দিয়ে আরো অনেক অসাধারণ কিছু করতে পারেন। পুরাতন ফোন দিয়ে আপনার জীবনকে আরো সহজ করে তুলতে পারেন। তাই অযত্নে, অবহেলায় আপনার ফোন ফেলে না রেখে প্রয়োজনীয় কোনো কাজে লাগান।

Related Articles

Back to top button
Close
Close